কষ্টের আকুতি

অনলাইন ডেস্ক | প্রকাশিত: ০৪ নভেম্বর ২০১৭ ২০:৪৩

কষ্টের আকুতি

-----মাহমুদা শিরীন 


নিঃসঙ্গ রাতের ঝরে পরা বিরহী তারার দিকে তাকিয়ে 
ভীষণ যন্ত্রণার দগ্ধে ক্ষতে পোড়ে পোড়ে শেষ হলাম ।
তোমার বিষমাখা কণ্ঠে কেবলি আমি অন্ধকারের নীরবে 
একা সয়ে অতল তলে ডুবে ডুবে একেবারে নিঃশেষ হলাম । 
হৃদয়হীন ভালোবাসাহীন হয়ে নির্দয় হাতে মারছো চাবুক 
আবার পরক্ষনেই বিষাক্ত সাপের মতো দংশন করে
নিবিড় আলিঙ্গনে ঠোঁটে আঁকছো উষ্ণ বিষাক্ত চুম্বন । 
এ কেমন ভালোবাসা ! বারবার প্রচণ্ড আঘাত করবে 
অথচ যন্ত্রণায় ছটফট করে উফ ! বলতেও পারবোনা 
সাদা কাফন জড়িয়ে হয়ে যাবে আমার জীবন্ত কবর ।
আকুতি মিনতি করেও রক্ষা নেই , এভাবেই চলছে---
বাঁচাও বাঁচাও বলে যখন চিৎকার করি বিশাল হৃদয়ের 
আকাশের সিঁড়ি বেয়ে নেমে মুক্ত করতে যেই আসে 
আবারো সেই বিষাক্ত যাদুমাখা কণ্ঠে তাকেই করছো আপন 
কণ্ঠে তোমার মাতাল উদ্ধারকারীরা বলে ভালই নাকি আছি ।
সীমাহীন অহেতুক অমানবিকতায় খাঁচায় বন্দিনী হয়ে 
সন্দেহের বানে জর্জরিত হয়ে অস্থির সময় পার করছি 
দীর্ঘ নিঃশব্দ আর্তচিৎকার কেউ শুনতে পায় না ।
হে পৃথিবী তুমিও কখনো জানতে চেয়োনা কেমন আছি 
তোমার জানতে চাওয়াই হবে আমার জীবন্ত কবর ।
তোমাদের কাছে ক্রমাগত আমি শুধু হেরেই গেলাম 
তাই এখন আর আমি আমাকেই ভালোবাসি না ।
তিলে তিলে নিঃশেষ হয়ে তোমাকে ভালোবেসে 
মরণকে করে নিবো আপন, শুধু তোমাকেই ভালোবেসে ।

আরও পড়ুন...