ঢাকা ও কোলকাতার পত্রপত্রিকার সব গুরুত্বপূর্ণ খবর

অনলাইন ডেস্ক | প্রকাশিত: ১৫ মার্চ ২০১৮ ১৭:২৬

ঢাকা ও কোলকাতার পত্রপত্রিকার সব গুরুত্বপূর্ণ খবর

আজ ১৫ মার্চ বৃহস্পতিবারের ঢাকা ও কোলকাতার গুরুত্বপূর্ণ বাংলা দৈনিকগুলোর বিশেষ বিশেষ খবর

বাংলাদেশের শিরোনাম:

নেপালে বিমান দুর্ঘটনা: ট্যুর বাতিল করছেন আতঙ্কিত বাংলাদেশি যাত্রীরা- দৈনিক যুগান্তর
খালেদা জিয়ার জামিন রোববার পর্যন্ত স্থগিত- দৈনিক যায়যায়দিন
জামিনে স্থগিতাদেশ সরকারের ইচ্ছার প্রতিফলন: ফখরুল- দৈনিক মানবজমিন
৪৫ লাখের জন্য ব্যবসায়ী অপহরণ আ.লীগ নেতার- দৈনিক প্রথম আলো
দ্রুত গতিতে চলছে মেট্রোরেলের কাজ- দৈনিক ইত্তেফাক
কোটা সংস্কা‌রের দা‌বি ‌: আন্দোলনের মুখে আটক‌দের ছে‌ড়ে দেয়া হ‌য়ে‌ছে- দৈনিক নয়াদিগন্ত
সউদী থেকে নারী কর্মীরা ফিরছে খালি হাতে: সঙ্কুচিত হচ্ছে শ্রমবাজার- দৈনিক ইনকিলাব
অন্যের নামে ঋণ নিয়েছেন ব্যাংকের পরিচালক- দৈনিক সমকাল
ভারতের শিরোনাম:

জামানত জব্দ হলেও বেজায় খুশি কংগ্রেস- দৈনিক আজকাল
যোগীর ঘরে সপা-র বাসা- দৈনিক আনন্দবাজার
তিক্ততা ভুলে মমতা-চামলিং বৈঠক কাল শিলিগুড়িতে- দৈনিক বর্তমান

প্রিয় পাঠক: এবার চলুন বাছাই করা কয়েকটি খবরের বিস্তারিত জেনে নেয়া যাক। 

প্রথমেই বাংলাদেশ:
নেপালে বিমান দুর্ঘটনা: ট্যুর বাতিল করছেন আতঙ্কিত বাংলাদেশি যাত্রীরা- দৈনিক যুগান্তর
আলিউল ইসলাম ভুঁইয়া পরিবারসহ নেপাল বেড়াতে যাবেন বলে সব কিছু ঠিকঠাক করে ফেলেছিলেন। কিন্তু কাঠমান্ডুতে বিমান দুর্ঘটনার পর পরিবারের সবাই মিলে সেই পরিকল্পনা ভয়ে বাতিল করে দিয়েছেন। তিনি বলেন, তার ছেলে ও মেয়ের ২৩ তারিখ থেকে ৩১ তারিখ পর্যন্ত স্কুল বন্ধ। এত অল্প সময়ে কোথায় যাওয়া যায়? আমরা সিদ্ধান্ত নিলাম যে নেপালে যাব। কিন্তু বিমান দুর্ঘটনার পর বাচ্চারা এবং স্ত্রী প্রোগ্রাম বাতিল করে দিয়েছে। তিনি বলেন, একটা ভুলের কারণে এত বড় একটা দুর্ঘটনা হল, এতগুলো প্রাণ চলে গেল। এতে ওদের মনের ভেতরে একটা আতঙ্ক সৃষ্টি হয়েছে।

বাংলাদেশের ট্যুর অপারেটররা বলেন, নেপালের কাঠমান্ডুতে বেসরকারি বিমান ইউএস-বাংলার বিমান দুর্ঘটনার পর থেকে অনেক বাংলাদেশি নেপালে যাওয়ার পরিকল্পনা বাতিল করছেন। ট্র্যাভেল এজেন্টরা বলেন, বাংলাদেশের মধ্যেও অভ্যন্তরীণ ফ্লাইটে অনেকেই ইউএস-বাংলার টিকিট ফেরত দিয়ে অন্য কোনো কোম্পানির ফ্লাইট নিচ্ছেন। নেপাল বাংলাদেশিদের জন্য জনপ্রিয় পর্যটন কেন্দ্র। কারণ সেখানে খরচ কম আবার বিমানবন্দর থেকেই সহজে ভিসা নেয়া যায়।

কেবল আলিউল ভুঁইয়াই নয়, বিষয়টি আরও অনেকের সিদ্ধান্তে প্রভাব ফেলেছে। এটি জানতে ঢাকার কয়েকটি ট্রাভেল এজেন্সির সঙ্গে কথা বললে আকাশবারী হলিডেজ নামে একটি এজেন্সির সহকারী ব্যবস্থাপক হাবিবুর রহমান বলেন, তাদের ক্লায়েন্টদের অনেকেই নেপাল ভ্রমণের পরিকল্পনা বাতিল করে অর্থ ফেরত নিয়েছেন। তিনি বলেন, যারা নেপালের কাস্টমার ছিলেন, তাদের মধ্যে চারজন রিফান্ড নিয়েছে। এখন আর কাস্টমাররা নেপাল যেতে চাচ্ছেন না, সেটি যে এয়ারলাইন্সই হোক না কেন।

খালেদা জিয়ার জামিন রোববার পর্যন্ত স্থগিত- দৈনিক যায়যায়দিন
জিয়া এতিমখানা ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় দণ্ডিত বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে হাইকোর্টের দেয়া জামিন আপিল বিভাগে আটকে গেছে। হাইকোর্টের দেয়া চার মাসের জামিন আদেশ আগামী রোববার পর্যন্ত স্থগিত করে ওই সময়ের মধ্যে দুদক ও রাষ্ট্রপক্ষকে নিয়মিত লিভ টু আপিল করতে বলেছে সর্বোচ্চ আদালত।

দুদক ও রাষ্ট্রপক্ষের আবেদনে প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেনের নেতৃত্বে চার সদস্যের আপিল বিভাগ বুধবার এ আদেশ দেয়।  চেম্বার বিচারপতি হাসান ফয়েজ সিদ্দিকী মঙ্গলবার দুদক ও রাষ্ট্রপক্ষের আবেদন শুনে তা শুনানির জন্য আপিল বিভাগের পূর্ণাঙ্গ বেঞ্চে পাঠিয়ে দিয়েছিলেন।

এর ধারাবাহিকতায় বুধবার বিষয়টি আপিল বিভাগে উঠলে দুদকের আইনজীবী খুরশীদ আলম খান বলেন, তারা হাইকোর্টের আদেশের বিরম্নদ্ধে লিভ টু আপিল করতে চান। কিন্তু আদেশের সত্যায়িত অনুলিপি না পাওয়ায় তা করতে পারেনি। তার বক্তব্য শুনেই প্রধান বিচারপতি হাইকোর্টের জামিন রোববার পর্যন্ত্ম স্থগিত করে এর মধ্যে লিভ টু আপিল করতে বলেন।

খালেদা জিয়ার আইনজীবী জয়নুল আবেদীন এ সময় দাঁড়িয়ে বক্তব্য দিতে চাইলে প্রধান বিচারপতি বলেন, আদালত রোববার তার বক্তব্য শুনবে। কথা বলার সুযোগ না পেয়ে বিএনপিপন্থি আইনজীবীরা এ সময় ক্ষোভ প্রকাশ করতে থাকেন। এক পর্যায়ে তারা আদালত কক্ষ থেকে বেরিয়ে যান।  রাষ্ট্রপক্ষে অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলমও এ সময় আদালতে উপস্থিত ছিলেন।

জামিনে স্থগিতাদেশ সরকারের ইচ্ছার প্রতিফলন: ফখরুল- দৈনিক মানবজমিন
বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার জামিন স্থগিতের ঘটনায় আশাহত হয়েছেন জানিয়ে দলটির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, আদালতের কার্যক্রমের মাধ্যমে সরকারের ইচ্ছার প্রতিফলন ঘটছে। গতকাল দুপুরে নয়াপল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক জরুরি সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন। মির্জা আলমগীর বলেন, একে একে সমস্ত প্রতিষ্ঠান ধ্বংস করেছে সরকার। এখন বিচার বিভাগকেও ধ্বংস করতে চায়। আমরা যেন আইনি সুবিধা না পাই বিচার বিভাগকে দলীয়করণের মাধ্যমে সেই ব্যবস্থা করা হচ্ছে। তিনি বলেন, আইনি প্রক্রিয়াকে দীর্ঘসূত্রতা করে বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার মুক্তি বিলম্ব করা হচ্ছে।

খালেদা জিয়াকে রাজনীতি ও নির্বাচন থেকে দূরে সরিয়ে রাখার জন্য নীলনকশার মাধ্যমে তাকে কারান্তরীণ করে রাখা হয়েছে। খালেদা জিয়া যেন দ্রুত কারাগার থেকে বের হতে না পারেন, সে জন্য ছলচাতুরী করছে সরকার। এমনকি তাকে ওকালতনামায় পর্যন্ত সই করতে দিচ্ছে না। উল্লেখ্য, কারাগারে থাকা বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে হাইকোর্টের দেয়া জামিন আগামী রোববার পর্যন্ত স্থগিত করেছেন আপিল বিভাগ। এই সময়ের মধ্যে জামিন স্থগিতের আবেদনকারীদের আপিলের অনুমতি চেয়ে আবেদন করতে বলা হয়েছে। বিএনপির মহাসচিব বলেন, অবৈধ অনৈতিক সরকার ভয়াবহ অত্যাচার-নির্যাতনের পথ বেছে নিয়েছে। আইনের  শাসনকে একে একে ধ্বংস করে চলেছে। গণতন্ত্রের প্রতিটি প্রতিষ্ঠানকে ধ্বংস করে ফেলেছে। আইনি প্রক্রিয়ায় যে জামিনের ব্যবস্থা করা হচ্ছে, সেগুলোকে দীর্ঘসূত্রতার পাশাপাশি বিভিন্ন ছলচাতুরী ও কলাকৌশলের মধ্য দিয়ে বিলম্বিত করছে সরকার। হাইকোর্টে দেশনেত্রীকে জামিন দেয়া হলো, তারপরও তিনি যেন বের হতে না পারেন, সে জন্য ছলচাতুরীর মাধ্যমে আবার দীর্ঘসূত্রতা শুরু হয়েছে। বাংলাদেশে এই সরকার সবচেয়ে বড় ক্ষতি যেটা করেছে, সেটা হচ্ছে বিচার বিভাগকে সম্পূর্ণ দলীয়করণ করেছে।

৪৫ লাখের জন্য ব্যবসায়ী অপহরণ আ.লীগ নেতার- দৈনিক প্রথম আলো
৪৫ লাখ টাকার জন্য ব্যবসায়ী জাফর ইকবাল ও তাঁর বন্ধু মিরাজ গাজীকে অপহরণ করেছিল মানিকগঞ্জের আওয়ামী লীগের নেতা সেলিম মোল্লা ও তাঁর ছেলে ছাত্রলীগের নেতা রাজিবুল ইসলামের নেতৃত্বাধীন একটি চক্র।

তেজগাঁও থানায় করা অপহরণের মামলায় এ কথা উল্লেখ করেছেন ব্যবসায়ী জাফর ইকবালের ভাগনে হাফিজুর রহমান। সেলিম মোল্লা হরিরামপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি। ছেলে রাজিবুল একই উপজেলার ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক।

গত শুক্রবার সকালে রাজধানীর ফার্মগেটের কাছে সরকারি বিজ্ঞান কলেজের সামনে থেকে ব্যবসায়ী মো. জাফর ইকবাল (৪০) ও তাঁর বন্ধু মো. মিরাজ গাজীকে (৩৫) মাইক্রোবাসে তুলে অপহরণ করা হয়। অপহরণকারীরা মুক্তিপণের ২ লাখ ৮৫ হাজার টাকা নিয়েও অপহৃত ব্যক্তিদের ছেড়ে দেননি। দুদিন পর গত রোববার রাতে র‍্যাব-২-এর একটি দল মানিকগঞ্জের হরিরামপুর উপজেলার ঝিটকাবাজার-সংলগ্ন কালই গ্রামের বাসিন্দা সেলিম মোল্লার বাসা থেকে অপহৃত ব্যক্তিদের উদ্ধার করে। সেলিম মোল্লা, তাঁর ছেলে রাজিবুলসহ ১০ জনকে গ্রেপ্তারও করা হয়। তাঁদের কাছ থেকে আগ্নেয়াস্ত্র, ধারালো অস্ত্র ও মুক্তিপণ হিসেবে নেওয়া ২ লাখ ৮৫ হাজার টাকা উদ্ধার করা হয়। এ ঘটনার পর গত সোমবার ছাত্রলীগ থেকে রাজিবুলকে বহিষ্কার করা হয়েছে।

দ্রুত গতিতে চলছে মেট্রোরেলের কাজ- দৈনিক ইত্তেফাক
রাজধানীতে দ্রুত গতিতে চলছে মেট্রোরেল প্রজেক্টের কাজ। নির্ধারিত স্থানে মাটির গভীরে ৪০ মিটার পর্যন্ত বিভিন্ন পরীক্ষা-নিরীক্ষা চলছে। পাশাপাশি চলছে অবিরাম পাইলিংয়ের কাজ। সেই সঙ্গে ডিপো ও স্টেশন নির্মাণের কাজও চলছে বেশ জোরেশোরে। ঢাকা ম্যাস র্যাপিড ট্রানজিট ডেভেলপমেন্ট প্রজেক্ট (ডিএমআরটিপি) কর্তৃপক্ষের পরিকল্পিত পদক্ষেপের কারণে নির্মাণকাজে দুর্ভোগ অনেক কম বলে জানিয়েছেন লোকজন।

সরেজমিন দেখা গেছে, মিরপুর-১০, ১১, ১২, কাজীপাড়া, শেওড়াপাড়া, তালতলা ও আগারগাঁওয়ের সড়কজুড়ে দিনরাত চলছে নির্মাণকাজ। শেরেবাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের ২ নং গেটের সামনের রাস্তার পাশে স্থাপন করা হয়েছে প্রকল্পের অস্থায়ী অফিস। জনদুর্ভোগ কমাতে রাস্তার দু’দিকে দুটি করে চারটি লেন খোলা রাখা হয়েছে। আগারগাঁও এলাকায় প্রকল্পের পাইলিংয়ের জন্য বিশাল আকৃতির ক্রেন, এসকাভেটর বসানো হয়েছে। খননের সময় যেসব মাটি নিচ থেকে তোলা হচ্ছে সেগুলো বক্সে করে উত্তরায় একটি ডাম্পিং সাইটে নিয়ে ফেলা হয়। অন্যদিকে দুর্ঘটনা এড়িয়ে প্রকল্প বাস্তবায়ন ও সড়ক ব্যবস্থাপনায় ব্যবহার করা হচ্ছে ‘হার্ড ব্যারিয়ার’। এর উপরে দেওয়া হয়েছে কাঁটাতারের ব্যারিকেড।

প্রকল্প পরিচালক মো. আফতাব উদ্দিন তালুকদার জানান, প্রকল্পটি বাস্তবায়িত হলে উত্তরা থেকে মতিঝিল আসতে সময় লাগবে মাত্র ৩৭ মিনিট। বিদ্যুত্চালিত এ ট্রেনের গতি হবে ঘণ্টায় গড়ে ৩২ কিলোমিটার। এ রুটে ৬টি করে বগির ১৪টি ট্রেন চলাচল করবে। প্রতিটিতে এক হাজার ৬৯৬ জন যাত্রী চলতে পারবে। এরমধ্যে আসনে বসতে পারবে ৯৪২ জন এবং দাঁড়িয়ে থাকবে ৭৫৪ জন। প্রতি ৪ মিনিট পর ট্রেন ছেড়ে যাবে। এতে প্রতি ঘণ্টায় উভয় দিক থেকে ৩০ হাজার করে ৬০ হাজার যাত্রী পরিবহন করা যাবে।

কোটা সংস্কা‌রের দা‌বি ‌: আন্দোলনের মুখে আটক‌দের ছে‌ড়ে দেয়া হ‌য়ে‌ছে- দৈনিক নয়াদিগন্ত
কোটা সংস্কা‌রের দা‌বি‌তে আন্দোলনকারীদের মধ্য থে‌কে আটক‌দের ছে‌ড়ে দেয়া হ‌য়ে‌ছে। বুধবার রা‌তে শিক্ষার্থী‌দের আন্দোল‌নের মু‌খে পু‌লিশ তা‌দের ছে‌ড়ে দেয়। ছে‌ড়ে দেয়ার বিষয়‌টি নি‌শ্চিত ক‌রেন রমনা থানার ওসি কাজী মাইনুল ইসলাম। তিনি জানান, আটককৃত‌দের জিজ্ঞাসাবাদ করে ছেড়ে দেয়া হয়েছে।

এর আগে সরকারি চাক‌রি‌তে বিদ্যম‌ান কোটা ব্যবস্থার সংস্কারসহ পাঁচ দফা দাবিতে চাকরিপ্রার্থীদের বিক্ষোভে টিয়ার‌শেল নি‌ক্ষেপ, লাঠিপেটা করে ছত্রভঙ্গ করে দেয় পুলিশ। সেখান থেকে আটক করে রমনা থানায় নিয়ে যাওয়া হয় তিন শিক্ষার্থীকে। আটক ওই তিন শিক্ষার্থীর মুক্তির দাবিতে রমনা থানায় গেলে আরো অর্ধশতক শিক্ষার্থীকে আটক করা হয়। এ ঘটনার প্রতিবাদে সহস্রাধিক শিক্ষার্থী বিকেল থেকে শাহবাগ মোড়ে অবস্থান নেন। এ সময় তাদের অবস্থানের কারণে শাহবাগ মোড় দিয়ে যান চলাচল সীমিত হয়ে পড়ে। রাজধানীর বিভিন্ন সড়কে তীব্র যানজট দেখা দেয়। দুর্ভোগে পড়েন অফিস ফেরত অসংখ্য যাত্রী।

শাহবাগে অবস্থান নিয়ে শিক্ষার্থীরা কোটা ব্যবস্থার সংস্কারের দাবিতে বিভিন্ন স্লোগান দেন। একই সঙ্গে তারা আটক শিক্ষার্থীদের মুক্তিরও দাবি জানান। তারা জানান, আটকদের ছেড়ে না দেয়া পর্যন্ত তারা শাহবাগ মোড়ের অবস্থান থেকে সরে যাবেন না। প‌রে আটক শিক্ষার্থীদের ছেড়ে দেয়ার খবর শাহবাগে আন্দোলনকারীদের কাছে পৌঁছালে তারাও অবস্থান থেকে সরে আসেন। আটকদের শাহবাগে ফুল দিয়ে বরণ করে নেয়া হয়। পরে মিছিল সহকারে টিএসসির রাজু ভাস্কর্যের সামনে সংক্ষিপ্ত সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।

সউদী থেকে নারী কর্মীরা ফিরছে খালি হাতে: সঙ্কুচিত হচ্ছে শ্রমবাজার- দৈনিক ইনকিলাব
শ্রমবাজার ক্রমান্বয়ে সংকুচিত হচ্ছে। তেল সমৃদ্ধ দেশ সউদী আরবের বৃহৎ শ্রমবাজার নিয়ে অস্থিরতা দেখা দিচ্ছে। সউদীতে কর্মী নিয়োগের চাহিদাপত্র কমে যাচ্ছে। সউদী’র প্রায় বারোটি পেশায় অভিবাসী কর্মীদের নিয়োগের ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে। এসব পেশায় সউদী নাগরিকদের নিয়োগের সিদ্ধান্ত দেয়া হয়েছে। এতে অধিকাংশ বাংলাদেশী ব্যবসায়ী ও কর্মীদের মাঝে অস্থিরতা দেখা দিয়েছে। সউদী’র অর্থনৈতিক মন্দা পরিস্থিতি ও অভিবাসীদের আকামা’র ফি দ্বি-গুণ বৃদ্ধির করায় পুরুষ কর্মী নিয়োগের ভিসাও ব্যাপক হারে কমে যাচ্ছে। মালয়েশিয়ার শ্রমবাজারে জি টু জি প্লাস প্রক্রিয়ায় দশ সিন্ডিকেটের অপতৎপরতা দিন দিন বাড়ছে।

সিন্ডিকেটের বেড়া-জালে পড়ে মালয়েশিয়া গমনেচ্ছু কর্মীদের চড়া অভিবাসন ব্যয় মেটাতে নাভিশ্বাস উঠছে। অ্যাপ্রæভাল ছাড়াই মালয়েশিয়া গমনেচ্ছু কর্মীদের স্বাস্থ পরীক্ষা করে মেডিকেল সেন্টারগুলো কোটি কোটি টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে। স্বাস্থ্য পরীক্ষা করার কয়েক মাস পরেও ভিসা না পাওয়ায় বিপুল সংখ্যক কর্মীর স্বাস্থ্য পরীক্ষার মেয়াদ শেষ হয়ে যাচ্ছে। অন্য দেশে যেতে চাইলে তাদের পাসপোর্টও ফেরত দেয়া হচ্ছে না বলে অভিযোগ উঠেছে। বায়রার একাধিক সূত্র এতথ্য জানিয়েছে। সউদী আরবের সফর জেল থেকে দফায় দফায় বাংলাদেশী নারী গৃহকর্মীরা খালি হাতে দেশে ফিরছে।

সউদী থেকে প্রচুর রেমিটেন্স আয়ের স্বপ্ন ভেঙ্গে যাচ্ছে অনেক অভিবাসী নারী কর্মীর। বুকভরা আশা নিয়ে এসব নারী কর্মীরা নিজের শিশু সন্তান ও স্বামীকে দেশে রেখে পাড়ি দিয়েছিলো তেল সমৃদ্ধ দেশ সউদী আরবে। রোববার দিবাগত রাত ৮টায় ইত্তেহাদ এয়ার ওয়েজের একটি ফ্লাইট যোগে সউদী আরবের সফর জেল থেকে ৩৬ জন নারী কর্মী খালি হাতে দেশে ফিরেছে। নানাভাবে নির্যাতনের শিকার এসব নারী কর্মীর অনেকেই হযরত শাহজালাল (রহ.) আন্তর্জাতিক বিমান বন্দরে পৌছে কান্নায় ভেঙ্গে পড়েন। প্রত্যক্ষদর্শিরা এতথ্য জানিয়েছে। ওয়েজ আর্নার্স কল্যাণ বোর্ড ও ব্র্যাকের সহযোগিতায় সউদী সফর জেল থেকে মহিলা গৃহকর্মীরা খালি হাতে দেশে ফিরছে।

অন্যের নামে ঋণ নিয়েছেন ব্যাংকের পরিচালক- দৈনিক সমকাল
যুক্তরাষ্ট্র প্রবাসী আমির হোসেনের নামে এনআরবি কমার্শিয়াল ব্যাংকে থাকা শেয়ারের প্রকৃত মালিক রতনপুর গ্রুপের কর্ণধার মাকসুদুর রহমান। সেই শেয়ার বন্ধক রেখে আমির হোসেনকে ২৫ কোটি টাকার ঋণ দিয়েছে সাউথ বাংলা এগ্রিকালচার অ্যান্ড কমার্স ব্যাংক। আমির হোসেনের নামে সৃষ্ট এ ঋণকে মাকসুদুর রহমানের বেনামি ঋণ হিসেবে চিহ্নিত করেছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক। মাকসুদুর রহমান সাউথ বাংলা ব্যাংকের পরিচালক ও ঝুঁকি ব্যবস্থাপনা কমিটির চেয়ারম্যান। তার বেনামি ঋণসহ ব্যাংকটির গুলশান ও পুরান ঢাকার ইমামগঞ্জ শাখার ২৫৮ কোটি টাকার ঋণে গুরুতর অনিয়ম পেয়েছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক।

বাংলাদেশ ব্যাংকের পরিদর্শন প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, খেলাপি ঋণের বিপরীতে যথাযথ সঞ্চিতি সংরক্ষণ না করে ব্যাংকের প্রকৃত আর্থিক তথ্য আড়াল করেছে সাউথ বাংলা ব্যাংক। এ ছাড়া বিধিবহির্ভূতভাবে বিভিন্ন গ্রাহককে ঋণ, মঞ্জুরিপত্রের শর্ত শিথিল, বিচার-বিশ্নেষণ না করে অন্য ব্যাংকের ঋণ অধিগ্রহণের নামে বাড়তি সুবিধা এবং সীমাতিরিক্ত ঋণ থাকা অবস্থায় নতুন ঋণ দেওয়া হয়েছে। শাখা ব্যবস্থাপনা, ব্যবস্থাপনা পরিচালকসহ প্রধান কার্যালয়ের ক্রেডিট কমিটি, পরিচালনা পর্ষদ ও পর্ষদের নির্বাহী কমিটির পারস্পরিক যোগসাজশে এসব অনিয়ম হয়েছে।

জানতে চাইলে সাউথ বাংলা ব্যাংকের চেয়ারম্যান এসএম আমজাদ হোসেন সমকালকে বলেন, এনআরবি কমার্শিয়াল ব্যাংকের শেয়ারের বিপরীতে ব্যাংক ঋণ দিয়েছে। গুলশান এবং ইমামগঞ্জ শাখার অন্যান্য ঋণ অনিয়মের বিষয়ে বলেন, যথারীতি কেন্দ্রীয় ব্যাংককে উত্তর দেওয়া হয়েছে। কেন্দ্রীয় ব্যাংক তা পর্যালোচনা করে ব্যাংককে জানানোর পর ব্যবস্থা নেওয়া হবে। তিনি বলেন, বাংলাদেশ ব্যাংকের পরিদর্শন তথ্যবহুল ছিল না। এখন তথ্যপ্রমাণসহ জানানো হয়েছে।

এবারে কোলকাতার বাংলা দৈনিকগুলোর বিস্তারিত খবর:

জামানত জব্দ হলেও বেজায় খুশি কংগ্রেস- দৈনিক আজকাল
উত্তরপ্রদেশে দলীয় প্রার্থীদের জামানত জব্দ হওয়া সত্ত্বেও বেজায় খুশি কংগ্রেস হাইকমান্ড!‌ অনেকেই বলছেন, হবে না–‌‌ই  বা কেন?‌ গত দু–‌‌বছরে লোকসভা উপনির্বাচনে এ পর্যন্ত সব কটি আসনেই বিরোধীদের কাছে ধরাশায়ী হতে হয়েছে বিজেপি–‌কে। আজ, শেষ দুটি আসনে নিজেরা না জিতলেও বিজেপি–‌‌কে কুপোকাত করা গেছে। দুই রাজ্যের উপনির্বাচনে রাজনৈতিক শত্রু বিজেপি–‌‌র অভাবনীয় পরাজয়ে তাই আনন্দের রোল এআইসিসি–‌‌র অন্দরে। যদিও একের পর এক আসনে বিজেপি–‌‌র পরাজয় দেখেও কংগ্রেস বা রাহুল গান্ধীর নেতৃত্বে এক ছাতার তলায় আসতে চাইছে না অন্য বিরোধী দলগুলি। একাধিক অ–‌‌বিজেপি দলের নেতারা প্রশ্ন তুলতে শুরু করেছেন, দুই রাজ্যের ফলাফলে কংগ্রেসের বেহাল দশাও তো সামনে চলে এসেছে। তাহলে কীসের ভিত্তিতে ২০১৯–‌‌এ অ–‌‌বিজেপি জোটে নেতৃত্ব দেওয়ার কথা ভাবছে কংগ্রেস?‌

এই প্রশ্নের আঁচ পৌঁছে গেছে সোনিয়া গান্ধীর কাছেও। সেই কারণেই মঙ্গলবার ২০টি অ–‌‌বিজেপি দলের নেতা‌–‌নেত্রীদের নিজের বাসভবনে ডেকে নৈশভোজ সেরেছেন তিনি। বোধহয় বার্তা দিতে চেয়েছেন, রাহুল নয়, ভবিষ্যতের ইউপিএ–‌‌তিন গঠিত হলে তিনিই হবেন শেষ কথা। কিন্তু প্রশ্ন থেকেই যায়, জাতীয় স্তরে কংগ্রেসের নেতৃত্বে বিজেপি–‌‌বিরোধী জোট হলে তাতে কি যোগ দেবে তেলুগু দেশম, টিআরএসের মতো কংগ্রেস–বিরোধী দলগুলি?‌ তাছাড়া উত্তরপ্রদেশে মায়াবতীও কি কংগ্রেসকে সঙ্গে চাইবেন?‌ এর মধ্যে আজ খুশির দিনে মায়াবতীর সঙ্গে সন্ধেয় দেখা করে আসেন অখিলেশ। ফোনে তেজস্বী যাদব কথা বলেন অখিলেশের সঙ্গে। আজকের উৎসবটা যেন কিছুটা কংগ্রেসকে বাদ দিয়েই হয়ে চলেছে।

যোগীর ঘরে সপা-র বাসা- দৈনিক আনন্দবাজার

হাতি সাইকেলে চেপে কুপোকাত করল বিজেপির নতুন হিন্দুত্বের ‘পোস্টার বয়’কে। যোগীর গড়ে বাজি মারলেন ‘বুয়া-বাবুয়া’, আর বিহারে জেলে বসে ক্ষমতা দেখালেন লালু। ত্রিপুরা জয়ের পর লম্ফঝম্প করা নরেন্দ্র মোদী-অমিত শাহ আজ জোড়া ধাক্কায় মুখ লুকোলেন।

উত্তরপ্রদেশের গোরক্ষপুর, ফুলপুর মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ ও উপমুখ্যমন্ত্রী কেশব মৌর্যের ছেড়ে যাওয়া লোকসভা আসন। ২০১৪-র মোদী-ঝড়ে লক্ষ লক্ষ ভোটে তাঁরা জিতেছিলেন। এ বারের উপনির্বাচনে উদাসীন জনতার ৪০ শতাংশ ভোট পড়েছে। তাতেই পাশা উল্টে গিয়েছে। জাত-পাত-ধর্মের জটিল সমীকরণকে পাশে রেখেই মায়াবতীর দলিত ভোট গিয়েছে অখিলেশের ঝুলিতে। দুই কেন্দ্রেই ধরাশায়ী বিজেপি।

এই প্রথম প্রমাণ হল, বিরোধীরা হাত ধরলে মোদীকে পরাস্ত করা সম্ভব। সদ্য কাল নৈশভোজে যে চেষ্টা শুরু করেছেন সনিয়া গাঁধী। রাতেই ফুলের তোড়া নিয়ে ‘বুয়া’ (পিসি)-র বাড়ি গেলেন অখিলেশ। দাবি করলেন, এই বোঝাপড়া আগামী দিনেও এগিয়ে নিয়ে যাওয়া হবে।

তিক্ততা ভুলে মমতা-চামলিং বৈঠক কাল শিলিগুড়িতে- দৈনিক বর্তমান
গোর্খাল্যান্ডের জিগির তুলে বিমল গুরুং অ্যান্ড কোম্পানির ১০৪ দিনের হিংসাশ্রয়ী আন্দোলন, ভাঙচুর, অগ্নিসংযোগ এবং সরকারি সম্পত্তি ধ্বংসপর্বে প্রতিবেশী রাজ্য সিকিমের বিরুদ্ধে ‘মদত’ দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে বারবার। রাজ্যের বিরুদ্ধে সশস্ত্র আন্দোলন এবং পুলিস খুনে অভিযুক্ত সপার্ষদ বিমল গুরুং আশ্রয় পেয়েছিলেন সিকিমে। গোর্খাল্যান্ডের সমর্থনে সিকিম বিধানসভায় নেওয়া হয়েছে সর্বসম্মত প্রস্তাব, তোলা হয়েছে চাঁদা, হয়েছে লাগাতার মিটিং-মিছিলও। বিষয়টি নিয়ে নবান্নের সঙ্গে রীতিমতো স্নায়ুযুদ্ধ শুরু হয়েছিল গ্যাংটকের সচিবালয়ের, সিকিমের পুলিস-প্রশাসনের। এবার সেই ‘তিক্ততা’কে দূরে সরিয়ে বাংলার সঙ্গে ‘সন্ধি’র প্রস্তাব এল সিকিমের সর্বোচ্চ স্তর থেকে।

সব প্রতিকূলতা সামলে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের কৌশলী চালে পাহাড় এখন শান্ত, স্বাভাবিক। কোণঠাসা গুরুং আর তাঁর মদতকারীরা। এরকম একটা অবস্থায় এবার সিকিমের মুখ্যমন্ত্রী পবন চামলিং মমতার সঙ্গে বৈঠকে বসার প্রস্তাব দিলেন। প্রতিবেশী রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীর সেই প্রস্তাবকে মর্যাদা দিয়ে আগামীকাল (১৬ মার্চ) দুপুরে শিলিগুড়ির উত্তরকন্যায় তিনি যে তাঁর সঙ্গে বৈঠকে বসবেন, বুধবার দার্জিলিংয়ের ম্যালে ‘হিল বিজনেস সামিট’-এর মঞ্চ থেকে তা জানিয়ে দিলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় নিজেই। ঘনিষ্ঠ মহলে তিনি বলেন, উনি (পবন চামলিং) নিজেই বৈঠকে বসার প্রস্তাব দিয়েছেন। তাতে সায় দিয়েছি। নির্দিষ্ট কোনও এজেন্ডা নেই। তবে পারস্পরিক স্বার্থ সংশ্লিষ্ট বিষয়গুলো তো থাকবেই। রাজনৈতিক মহলের বক্তব্য, গুরুং অ্যান্ড কোম্পানিকে দিয়ে আর কোনও স্বার্থসিদ্ধি যে সম্ভব নয়, নিজেদের দৈনন্দিন অস্তিত্ব রক্ষায় বাংলার সাহচর্য যে সবচেয়ে জরুরি, সেটা উপলব্ধি করেই মমতার কাছে সন্ধিপ্রস্তাব পাঠিয়েছেন চামলিং।