কিংবদন্তি চিত্রশিল্পী এস এম সুলতানের ৯৩তম জন্মবার্ষিকী আজ

আমাদের প্রতিবেদক | প্রকাশিত: ১০ আগস্ট ২০১৭ ১৪:০১

কিংবদন্তি চিত্রশিল্পী এস এম সুলতানের ৯৩তম জন্মবার্ষিকী আজ

কিংবদন্তি চিত্রশিল্পী এস এম সুলতানের ৯৩তম জন্মবার্ষিকী আজ। এ উপলক্ষে নড়াইলে তার স্মৃতি বিজড়িত সুলতান পল্লিতে আয়োজন করা হয়েছে দিনব্যাপী শিশু চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতা, আলোচনা সভা ও পুরস্কার বিতরণী।

১৯২৪ সালের ১০ আগস্ট নড়াইল পৌরসভার মাছিমদিয়া গ্রামের এক দরিদ্র রাজমিস্ত্রির ঘরে জন্ম নেন সুলতান। তাঁর ডাক নাম ছিল লাল মিয়া।

জীবদ্দশাতেই কিংবদন্তি হয়ে ওঠা সুলতান বিচিত্র ধরনের ছবি এঁকে সারা বিশ্বে হইচই ফেলে দেন। তিনিই প্রথম এশীয়, যাঁর আঁকা ছবি পাবলো পিকাসো, সালভাদর দালির মতো বিশ্ববিখ্যাত চিত্রশিল্পীদের চিত্রকর্মের সঙ্গে প্রদর্শিত হয়েছে।

মাত্র ২৫ বছর বয়সে তাঁর এই ছবিগুলো প্রদর্শিত হয় লন্ডনের ভিক্টোরিয়া এমব্যাঙ্কমেন্ট ও লেইস্টার গ্যালারিতে।

সুলতান তাঁর চিত্রকর্মের জন্য অনেক জাতীয় ও আন্তর্জাতিক পুরস্কার পেয়েছেন। এগুলোর মধ্যে উল্লেখযোগ্য ১৯৮২ সালে কেমব্রিজ বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃক ম্যান অব দ্য ইয়ার, একই বছর একুশে পদক, ’৮৪ সালে বাংলাদেশ সরকার কর্তৃক আর্টিস্ট ইন রেসিডেন্স, ’৯৩ সালে স্বাধীনতা পদক এবং ’৯৯ সালে চারুকলা ইনস্টিটিউটের ৫০ বছর পূর্তিতে সম্মাননা (মরণোত্তর) পদক উল্লেখযোগ্য।

তার চিত্রকর্মে গ্রামীণ জীবনের বর্ণিল বাস্তবতা নিগূঢ়ভাবে ফুটে উঠেছে। তার আঁকা ছবিতে, পেশীবহুল কৃষক ও সুঠাম গড়নের গ্রামীন নারীদের নির্মল রূপে দেখা যায়। তার চিত্রকর্মে সংগ্রামী মানুষ যেন চিৎকার করছে। অবিচার, শোষণের নীরবতা ভাঙা সোচ্চার সব চিত্রকর্ম এস এম সুলতানের।

তার কিছু বিখ্যাত চিত্র কর্মের ভেতর “ম্যাসাকার”, “জিপসি পরিবার”, “কৃষক”, “প্রথম রোপণ”, “চর দখল” ও “আদম সুরত” অন্যতম।

১০ অক্টোবর ১৯৯৪ সালে যশোরে সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৭১ বছর। তাকে যশোরে সমাহিত করা হয়।

আরও পড়ুন...