খালেদার মুক্তি দাবিতে কঠোর আন্দোলনের পরিকল্পনা বিএনপির

আমাদের প্রতিবেদক | প্রকাশিত: ০৪ মে ২০১৮ ২২:১৯

খালেদার মুক্তি দাবিতে কঠোর আন্দোলনের পরিকল্পনা বিএনপির

দলের চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে কঠোর আন্দোলনে যাওয়ার জন্য পরিকল্পনা করছে বিএনপি। এর জন্য বিএনপির সিনিয়র নেতারা তাদের নিজস্ব মতামতও দিয়েছেন। নেতাদের মতামত, কারাগারে বেগম জিয়াকে যেভাবে ক্ষমতাসীনরা নির্যাতন করছে এবং তিনি অসুস্থ হলেও তাকে তার ব্যক্তিগত চিকিৎসকদের দিয়ে চিকিৎসা করতে দিচ্ছে না-এমন পরিস্থিতিতে খালেদা জিয়ার মুক্তি পাওয়ার সম্ভাবনা খুবই কম। সুতরাং আমাদের সামনে (বিএনপি) কঠোর আন্দোলন-সংগ্রাম ছাড়া অন্য কোন বিকল্প পথ নেই। 

শুক্রবার সন্ধ্যায় চেয়ারপার্সনের গুলশান রাজনৈতিক কার্যালয়ে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য, ভাইস চেয়ারম্যান, যুগ্ম মহাসচিব, সাংগঠনিক সম্পাদক, সম্পাদক ও চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টাদের এক যৌথ বৈঠকে নেতারা এ মতামত দেন বলে সূত্রে জানা গেছে। বিকেল ৪ টা ২০ থেকে শুরু হয়ে সন্ধ্যা সাড়ে ৭ টায় এ বৈঠক শেষ হয়।

সূত্রটি জানায়, বৈঠকে নেতারা বলেছেন, বিএনপি চেয়ারপার্সনের মুক্তির দাবিতে আমরা যে কর্মসূচি পালন করছি, এতে কোন ফলাফল পাওয়া যাবে না। তাই আমাদের বিকল্প পথ (কঠোর আন্দোলন) বেঁছে নিতে হবে। শুধু মাত্র মানববন্ধন, অবস্থান কর্মসূচি, বিক্ষোভ, কালো পতাকা মিছিল এবং লিফলেট বিতরণ করে কোন লাভ হবে। আমাদের (বিএনপি) হরতাল, অবরোধ ও অনশনের মত কর্মসূচিতে যেতে হবে। বৈঠকে উপস্থিত প্রায় সকল নেতারাই একই মতামত দেন বলে সূত্রটি জানায়।

সূত্রটি আরো জানান, রমজান মাসেও বেগম জিয়ার কারা মুক্তির দাবিতে কর্মসূচি অব্যাহত থাকবে। তবে পর্যায়ক্রমে এবং পরিস্থিতি বিবেচনা ও পর্যবেক্ষণ করে কঠোর আন্দোলন কর্মসূচির ঘোষণা করবে।

প্রায় ৩ ঘণ্টা পর বৈঠক থেকে বের হয়ে এসে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর সাংবাদিকদের বলেন, সভায় বর্তমান রাজনৈতিক পরিস্থিতি আমরা পর্যবেক্ষণ করেছি এবং পর্যালোচনা করেছি। এছাড়া আগামীতে আমাদের করণীয় কী, সেই বিষয়ে নেতারা তাদের মতামত দিয়েছেন। আসন্ন গাজীপুর ও খুলনা সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন নিয়েও আলোচনা হয়েছে বলে জানান তিনি।

মির্জা ফখরুল আরো জানান, বৈঠকে বিশেষ করে বেগম খালেদা জিয়ার অসুস্থতা ও তার মুক্তির বিষয়টি আলোচনায় প্রাধান্য পেয়েছে। আগামীতে দেশে গণতন্ত্র পুনরুদ্ধার কিভাবে করতে পারে সেই বিষয়ে নেতারা কথা বলেছেন-বলেন ফখরুল।

মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের সভাপতিত্বে বৈঠকে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন, ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ,  ব্যারিস্টার রফিকুল ইসলাম মিয়া, মির্জা আব্বাস, আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী, চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা রিয়াজ রহমান, আমান উল্লাহ আমান, ইকবাল হাসান মাহমুদ টুকু, ড. সুকোমল বড়ুয়া, ব্যারিস্টার হায়দার আলী, হাবিবুর রহমান হাবিব, আতাউর রহমান ঢালী, আবুল খায়ের ভুঁইয়া, ভাইস চেয়ারম্যান আব্দুল্লাহ আল নোমান, মো. শাহজাহান, অ্যাডভোকেট খন্দকার মাহবুব হোসেন, বরকত উল্লাহ বুলু, মেজর (অব.) আলতাফ হোসেন চৌধুরী, আব্দুল মান্নান, শওকত মাহমুদ, যুগ্ম মহাসচিব সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, খায়রুল কবির খোকন, সাংগঠনিক সম্পাদক রুহুল কুদ্দুস তালুকদার দুলু, শামা ওবায়য়েদ, প্রচার সম্পাদক শহীদ উদ্দিন চৌধুরী এ্যানী, স্বেচ্ছাসেবক বিষয়ক সম্পাদক মীর সরফত আলী সপু, প্রশিক্ষণ বিষয়ক সম্পাদক এবিএম মোশাররফ হোসেন প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

 

আরও পড়ুন...