পুড়ে ছাই বাকৃবির পুনর্মিলনী অনুষ্ঠানের প্যান্ডেল

আমাদের প্রতিবেদক | প্রকাশিত: ২২ জুলাই ২০১৮ ১৩:৪৫

পুড়ে ছাই বাকৃবির পুনর্মিলনী অনুষ্ঠানের প্যান্ডেল

বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের গৌরব ও সাফল্যের ৫৭তম বছর পূর্তি ও অ্যালামনাই পুনর্মিলনী আজ রবিবার বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাবর্তন মাঠে অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা ছিল। ৩০ লাখ টাকা ব্যয়ে পুরো মাঠ সাজানো হয়েছিল। কিন্তু গতকাল শনিবার মধ্যরাতে আকস্মিক অগ্নিকাণ্ডে অনুষ্ঠানস্থলের সব পুড়ে ছাই হয়ে যায়।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ উপস্থিত থাকার কথা ছিল। অনুষ্ঠানস্থল পুড়ে যাওয়ার পর তাৎক্ষণিকভাবে উপাচার্যের বাসভবনে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের জরুরি সভা অনুষ্ঠিত হয়। সেখানে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিল্পাচার্য জয়নুল আবেদিন মিলনায়তনে অনুষ্ঠানের সিদ্ধান্ত হয়। বেলা ২টার অনুষ্ঠানে রাষ্ট্রপতি উপস্থিত থাকবেন বলে জানিয়েছেন উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আলী আকবর।

সভায় উপাচার্য সাংবাদিকদের বলেন, অনুষ্ঠানের জন্য অনেক সাবেক শিক্ষার্থী ও অতিথি বাইরে থেকে এসেছেন। দুর্ঘটনার কারণে বিকল্প হিসেবে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিল্পাচার্য জয়নুল আবেদিন মিলনায়তনে ৫৭ বছর পূর্তি অনুষ্ঠিত হবে। রাষ্ট্রপতি সেখানে উপস্থিত থাকবেন। তবে মিলনায়তনে দুই হাজার লোকের আসন রয়েছে। সেখানে আসন সংকুলান না হওয়ায় মিলনায়তনের পার্শ্ববর্তী হেলিপ্যাড যেখানে কৃষি প্রযুক্তি মেলা হওয়ার কথা ছিল, সেখানে বাকিদের বসার ব্যবস্থা করা হবে। বড় পর্দায় মূল অনুষ্ঠান দেখার ব্যবস্থা থাকবে। উপাচার্য শিক্ষার্থী এবং অতিথিদের সহযোগিতা কামনা করেন এবং এ দুর্ঘটনার জন্য দুঃখ প্রকাশ করেন।

সরেজমিনে দেখা গেছে, সমাবর্তন মাঠে পাঁচ হাজার লোকের আসনবিশিষ্ট একটি প্যান্ডেল এবং মঞ্চ তৈরি করা হয়েছিল। শনিবার রাত ১২টার দিকে প্যান্ডেলের ওপর একজন হঠাৎ আগুনের ফুলকি দেখতে পান। কয়েক মিনিটের মধ্যে আগুন ভয়াবহ আকার ধারণ করে। ময়মনসিংহ ফায়ার সার্ভিসের মোট সাতটি ইউনিট এক ঘণ্টা চেষ্টা চালিয়ে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে। তবে প্যান্ডেলের চেয়ার, ফ্যান, সাউন্ড সিস্টেম এবং এলইডি পর্দাসহ অন্য সরঞ্জাম পুড়ে গেছে।

ময়মনসিংহ ফায়ার সার্ভিস এবং সিভিল ডিফেন্সের ভারপ্রাপ্ত উপপরিচালক সহিদুর রহমান বলেন, 'আমরা ঘণ্টাব্যাপী চেষ্টার পর আগুন নেভাতে সক্ষম হই। বৈদ্যুতিক শটসার্কিট থেকে আগুনের সূত্রপাত হতে পারে বলে প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে।' 

 

আরও পড়ুন...