আসামে বাঙালি হত্যার পর চলছে সেনা অভিযান

আন্তর্জাতিক ডেস্ক | প্রকাশিত: ০২ নভেম্বর ২০১৮ ১৬:১৭

আসামে বাঙালি হত্যার পর চলছে সেনা অভিযান

ভারতের আসাম রাজ্যে পাঁচ বাঙালিকে হত্যার ঘটনার পর ব্যাপক তল্লাশি অভিযান শুরু করেছে সেনাবাহিনী। আসাম-অরুণাচল সীমানা বরাবর ইতিমধ্যেই শুরু হয়েছে জঙ্গিবিরোধী অভিযান। মিয়ানমার সীমান্তে কড়া নজরদারি চালাচ্ছেন আসাম রাইফেলসের জওয়ানরা। তদন্তে নেমে উলফার দুই নেতাকে আটকও করেছে পুলিশ।

অন্যদিকে, আসামের বাঙালি সংগঠনগুলোর ডাকে তিনসুকিয়ায় চলছে ১২ ঘণ্টার বন্‌ধ। তাছাড়া পশ্চিমবঙ্গে রাজ্যজুড়ে বিক্ষোভ কর্মসূচির ডাক দিয়েছে তৃণমূল কংগ্রেস।

বৃহস্পতিবার রাত ৮টা নাগাদ আসামের তিনসুকিয়ার বাঙালি অধ্যুষিত খেরবাড়ি গ্রামে ঢুকে একটি দোকানের সামনে থেকে পাঁচজনকে ডেকে নিয়ে গিয়ে গুলি করে খুন করে সন্দেহভাজন উলফা জঙ্গিরা। প্রাথমিক তদন্তে উঠে এসেছে, উলফা (স্বাধীনকামী সংগঠন) এ হামলা চালিয়েছে।

যদিও ওই সংগঠনের পক্ষ থেকে বিবৃতি দিয়ে খুনের ঘটনা অস্বীকার করা হয়েছে।

আনন্দবাজারের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, আসামের মুখ্যমন্ত্রী সর্বানন্দ সোনোয়ালের নির্দেশে পুলিশ প্রশাসনের সর্বোচ্চ কর্তারা বৃহস্পতিবার রাতেই ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। এরপর শুক্রবার সকাল থেকেই কার্যত চিরুনি তল্লাশি শুরু করেছেন সেনা জওয়ানরা। সমস্ত চেক পয়েন্টগুলিতে চেকিং চলছে। আন্তঃরাজ্যের সীমানা ও আন্তর্জাতিক সীমান্তে গাড়ি থামিয়ে তল্লাশি চালাচ্ছেন জওয়ানরা। জঙ্গল এলাকার ওপর কড়া নজরদারি রাখা হয়েছে। এর পাশাপাশি সন্দেহজনক সব জায়গায় চলছে ব্যাপক তল্লাশি অভিযান।

অন্যদিকে, তদন্ত শুরু করেছে পুলিশও। কিছু দিন আগেই বাঙালি সম্প্রদায়ের যারা সুপ্রিম কোর্টে এনআরসির বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেছেন, তাদের হুমকি দিয়েছিল আলোচনাপন্থী উলফা নেতারা। সেই সূত্রেই আলোচনাপন্থী দুই নেতা মৃণাল হাজারিকা এবং জিতেন দত্তকে আটক করে জিজ্ঞাসাবাদ করছেন পদস্থ পুলিশ কর্তারা।

অল আসাম বেঙ্গলি ইয়ুথ স্টুডেন্টস ফেডারেশন তিনসুকিয়ায় ১২ ঘণ্টার বন্‌ধের ডাক দিয়েছে। আরও কয়েকটি সংগঠনের ডাকে তিনসুকিয়ায় স্বতঃস্ফূর্ত বন্‌ধ চলছে। রাস্তায় চলছে হাতে গোনা যানবাহন। দোকানপাট খোলেনি।

তিনসুকিয়ার ঘটনায় বৃহস্পতিবারই কড়া প্রতিক্রিয়া জানিয়েছিলেন পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। দিল্লিতে বিবৃতি দিয়ে ঘটনার কড়া নিন্দা এবং শোক প্রকাশ করেন দলের সংসদ সদস্য ডেরেক ওব্রায়েন। পাশাপাশি রাজ্যজুডে় প্রতিবাদ-বিক্ষোভ কর্মসূচির ঘোষণা করেছিল তৃণমূল কংগ্রেস।

টুইটারে শুক্রবার দলটির পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, আসামে খুনের ঘটনার প্রতিবাদে রাজ্যজুড়ে রাস্তায় নেমে প্রতিবাদ করা হবে।

পাশাপাশি ঘটনায় শোক প্রকাশ করতে দলের ফেসবুক-টুইটারের ডিসপ্লে পিকচার (ডিপি) কালো করে দেওয়া হয়েছে। কলকাতা, শিলিগুড়ি, আলিপুরদুয়ার, জলপাইগুড়ি, নদিয়াসহ বিভিন্ন জায়গায় প্রতিবাদ-বিক্ষোভ কর্মসূচি পালনের কথা জানানো হয়।

 

আরও পড়ুন...