ঈদের সাতদিন আগে মহাসড়ক মেরামতের নির্দেশ

news-details
জাতীয়

।। নিজস্ব প্রতিবেদক ।। 

আসন্ন ঈদ-উল-ফিতর এর আগে ও পরের তিন দিন জরুরী পণ্য ছাড়া সড়ক-মহাসড়কে ট্রাক, লরি, কাভার্ডভ্যান চলাচল বন্ধ থাকবে। এছাড়া ঈদের আগে সাতদিন এবং পরে পাঁচদিন সারাদেশে সিএনজি স্টেশনগুলো চব্বিশ ঘন্টা খোলা রাখার জন্য জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ মন্ত্রণালয়কে অনুরোধ করা হবে। ঘরমুখো মানুষের যাত্রা নির্বিঘ্নে করতে সকল শ্রেণির মহাসড়কের মেরামতের কাজ ঈদের সাতদিন আগে শেষ করা হবে।

ঈদ উপলক্ষে সড়ক-মহাসড়কে ফিটনেসবিহীন যানবাহন চলাচল বন্ধে বিআরটিএ’র মোবাইল কোর্ট কার্যকর থাকবে। বর্ষার অযুহাতে কোন এলাকায় সড়কে দুর্ভোগ সৃষ্টি হলে সংশ্লিষ্ট সড়ক বিভাগের কর্মকর্তার বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে সড়ক পরিবহন মন্ত্রণালয়।

ঈদে ঘরমুখো মানুষের যাত্রায় ভোগান্তি কমাতে এসব পদক্ষেপের কথা জানিয়েছে মন্ত্রণালয়। বৃহস্পতিবার সচিবালয়ে সড়ক পরিবহন মন্ত্রণালয়ে ঈদযাত্রা উপলক্ষে এক প্রস্তুতি সভা শেষে সচিব নজরুল ইসলাম এসব সিদ্ধান্তের কথা সাংবাদিকদের জানান।

বৈঠকের সিদ্ধান্ত অনুযায়ি, ঈদের আগে সড়কে যেনো হাট-বাজার বসতে না পারে সেজন্য মাঠ পর্যায়ে চিঠি দেয়া হয়েছে। এছাড়াও টিকিট বিক্রির পর থেকেই বাস টার্মিনালগুলোতে যাত্রীদের ভোগান্তি কমাতে ভিজিলেন্স টিম রাখারও সিদ্ধান্ত নিয়েছে সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয়।

মহাসড়ক বিভাগের সচিব নজরুল ইসলামের সভাপতিত্বে বৈঠকে আরো সিদ্ধান্ত হয়, ঈদযাত্রায় পথে যেনো যানজট সৃষ্টি না হয় এজন্য ট্রাফিক পুলিশ সহ বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ের সমন্বয়ে গঠিত মনিটরিং টিম থাকবে।

সড়ক পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগের সচিব এসময় জানান, অন্যান্য বছরের তুলনায় এ বছর সড়ক-মহাসড়ক অপেক্ষাকৃত ভাল। তাই এবার ঘরে ফেরা মানুষের যাতায়াত অধিকতর স্বস্তিদায়ক হবে বলে তিনি আশা প্রকাশ করেন। তিনি বলেন, আমি সড়ক মেরামতের কাজ দ্রুত শেষ করার নির্দেশ দিয়েছি। এজন্য সময়ও বেধে দেয়া হয়েছে। আমার জানামতে দেশের বেশিরভাগ সড়কের অবস্থা ভাল। ঈদের আগে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের দ্বিতীয় মেঘনা সেতু যান চলাচলেন জন্য খুলে দেয়া হবে। পাশাপাশি ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কের ফোর লেন প্রকল্পের অগ্রগতি সন্তোষজনক। আমরা চেষ্টা করবো এই মহাসড়কে যেন দুর্ভোগ কম নয়। এজন্য বিশেষ ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে।

তিনি বলেন, সড়ক মহাসড়ক নিয়ে কোন অভিযোগ আসলে তা সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তার কর্তব্যে গাফিলতি হিসেবে গণ্য হবে। বর্ষার অযুহাত দেখিয়ে সড়ক মেরামত ঠিকঠাক হবে না তা আমরা মেনে নেব না। অভিযোগের প্রেক্ষিতে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে। তিনি বলেন, আশাকরি ঈদযাত্রা সস্তিদায়ক হবে। সড়কে ভোগান্তি ছাড়াই মানুষ বাড়ি ফিরতে পারবেন।

ব্রিফিং-এ তিনি জানান, যানবাহনের অতিরিক্ত ভাড়া আদায় নিয়ন্ত্রণে রাজধানীর টার্মিনালগুলোতে বিআরটিএ’র ভিজিল্যান্স টিম কার্যকর থাকবে। ঈদের আগের দিন যাত্রীদের অধিক চাপ নিয়ন্ত্রণে গার্মেন্টসসমূহ ধাপে ধাপে ছুটি দেয়ার জন্য বিজিএমইএ’কে অনুরোধ করা হবে বলেও তিনি জানান।

এক প্রশ্নের জবাবে তিনি জানান, ঈদের আগে তিন দিন ট্রাক, কাভার্ডভ্যান ও লরি চলাচল বন্ধ থাকলেও নিত্য প্রয়োজনীয় খাদ্যদ্রব্য, গার্মেন্টস সামগ্রী, পঁচনশীল দ্রব্য, ঔষধ এবং জ্বালানী বহনকারী যানবাহনসূহ এর আওতামুক্ত থাকবে।

প্রতিবছরের ন্যায় এবারও ঈদ স্পেশাল সার্ভিস পরিচালনা করবে বিআরটিসি। এবারে বিআরটিসি’র বহরে আরও যুক্ত হবে নতুন ক্রয়কৃত দেড় শতাধিক বাস। এছাড়া কোথাও যানজট কিংবা পরিবহনের সংকট দেখা দিলে তাৎক্ষণিক পরিস্থিতি মোকাবিলায় বিআরটিসি’র অতিরিক্ত বাস প্রস্তুত রাখা হবে বলে সড়ক পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগের সচিব জানান।

তিনি আরও জানান, ঈদের সময় মহাসড়কে যানবাহন চলাচল নির্বিঘœ রাখতে টোলপ্লাজাসমূহের সকল বুথ চালু রাখা হবে। কঠোরভাবে ২২টি জাতীয় মহাসড়কে থ্রি-হুইলার অটোরিকশা এবং সকল শ্রেণির অযান্ত্রিক যানবাহন চলাচল বন্ধের সিদ্ধান্ত বাস্তবায়ন করা হবে।

সভায় সড়ক ও জনপথ অধিদপ্তরের প্রধান প্রকৌশলী ইবনে আলম হাসান, বিআরটিএ’র চেয়াম্যান মো. মশিয়ার রহমান ছাড়াও মন্ত্রণালয়ের উর্ধ্বতন কর্মকর্তাগণ, বাংলাদেশ পুলিশ ঢাকা রেঞ্জের অতিরিক্ত মহাপরিদর্শক, হাইওয়ে পুলিশ, ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ, পরিবহন মালিক-শ্রমিক এবং ট্রাক ও কাভার্ডভ্যান মালিক সমিতির নেতৃবৃন্দসহ অন্যান্য অংশীজন উপস্থিত ছিলেন।

এবারও ঈদে বিআরটিসির অতিরিক্ত বাসের ব্যবস্থা করা হবে এবং অন্যবারের তুলনায় এবার এ সুবিধা বেশি থাকবে বলেও জানান সচিব। তিনি জানান, যে ৬শ বাস আসার কথা তার মধ্যে ১৫৮টি এসেছে এবং রমজানে আরো কিছু আসবে।

বিআরটিসির স্পেশাল সার্ভিস ॥ আসন্ন ঈদুল ফিতরের সময় প্রতিবছরের মতো এবারও ঈদ স্পেশাল সার্ভিস পরিচালনা করবে বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন করপোরেশন (বিআরটিসি)। এবারে বিআরটিসি’র বহরে যুক্ত হবে নতুন কেনা আরও দেড় শতাধিক বাস। এছাড়া কোথাও যানজট কিংবা পরিবহনের সংকট দেখা দিলে তাৎক্ষণিক পরিস্থিতি মোকাবিলায় বিআরটিসি’র অতিরিক্ত বাস প্রস্তুত রাখা হবে।

সড়ক পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগের সচিব মো. নজরুল ইসলাম জানান, মানুষের ঈদযাত্রা নির্বিঘ্নে করতে সব শ্রেণির মহাসড়কের মেরামত কাজ ঈদের সাতদিন আগে শেষ করা হবে। সড়ক-মহাসড়কে ফিটনেসবিহীন যানবাহন চলাচল বন্ধে বাংলাদেশ রোড ট্রান্সপোর্ট অথরিটির (বিআরটিএ) মোবাইল কোর্ট কার্যকর থাকবে।

You can share this post on
Facebook

0 মন্তব্য

মন্তব্য করতে লগইন করুন অথবা নিবন্ধন করুন ।