‘বাণিজ্য যুদ্ধে ভয় নেই, তবে তা চাই না’

news-details
আন্তর্জাতিক

আমাদের ডেস্কঃ আমেরিকার সঙ্গে বাণিজ্য যুদ্ধ শুরু হলে কোনো পক্ষই বিজয়ী হবে না আর তাই চীন যুদ্ধে জড়াতে চায় না। তবে এ ধরনের যুদ্ধে চীনের কোনো ভয় নেই। সোমবার ( ১৩ মে) চীনের ক্ষমতাসীন কমিউনিস্ট পার্টির ‘পিপলস ডেইলি’তে এক সংবাদভাষ্যে এ মন্তব্য করা হয়েছে। পিপলস ডেইলি’র সংবাদভাষ্যকে চীন সরকারের রাষ্ট্রীয় অবস্থান বলে মনে করা হয়।

চীন ও আমেরিকা তাদের কয়েক মাসব্যাপী চলা বাণিজ্য মতবিরোধ নিয়ে কোনো চুক্তিতে উপনীত হতে ব্যর্থ হওয়ার পর বেইজিংয়ের পক্ষ থেকে এ ঘোষণা এলো। ওই আলোচনার সঙ্গে ঘনিষ্ঠ সূত্রগুলো জানিয়েছে, মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প চীনকে এক মাসের আল্টিমেটাম দিয়ে বলেছেন, এ সময়ের মধ্যে বাণিজ্য চুক্তি না হলে চীন থেকে আমেরিকায় রপ্তানি করা প্রতিটি পণ্যের ওপর শুল্ক আরোপ করবে ওয়াশিংটন।

দৈনিকটি জানায়, বাণিজ্যিক মতপার্থক্য নিয়ে আমেরিকার সঙ্গে আলোচনার জন্য চীনের দরজা সব সময় খোলা রয়েছে। তবে নিজের বাণিজ্যিক নীতির সঙ্গে চীন যেমন আপস করবে না তেমনি নিজের অগ্রাধিকারের বিষয়গুলোতে ছাড় দিতেও রাজি নয় বেইজিং।

এর আগে শুক্রবার চীনের উপ প্রধানমন্ত্রী লিউ হি একই ধরনের মন্তব্য করে জানিয়েছিলেন, চীন ও আমেরিকার মধ্যে সহযোগিতা হচ্ছে শ্রেষ্ঠ পন্থা, তবে নিজের মৌলিক নীতির প্রশ্নে আপস করবে না বেইজিং।

চীন-মার্কিন চলমান বাণিজ্য যুদ্ধের কারণে বিশ্ব অর্থনীতিতে আরেকটি মন্দার আশঙ্কা করছেন অর্থনীতিবিদরা। বলা হচ্ছে, দেশ দুটি একে অপরের পণ্যের ওপর শুল্ক কার্যকর করে বাণিজ্য যুদ্ধ শুরু করেছে। ধারণা করা হচ্ছে, এই যুদ্ধ চীন ও যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যেই সীমাবদ্ধ থাকবে না, পর্যায়ক্রমে বিশ্বের অন্যান্য দেশেও ছড়িয়ে পড়তে পারে। এমনকি চীনের কাঁচামালে তৈরি পণ্য রফতানিতেও আমেরিকা বিধিনিষেধ আরোপ করতে পারে। 
বিশ্লেষকরা মনে করেন, এ ধরনের বাণিজ্য যুদ্ধের ফলে বিনিয়োগকারীরা বিনিয়োগ সিদ্ধান্তে পরিবর্তন করতে পারেন। অনেকেই আশঙ্কা করছেন, পাল্টা শুল্কের হাত থেকে বাঁচতে অনেকেই যুক্তরাষ্ট্রের বাইরে তাদের ব্যবসা নিয়ে যেতে পারেন। যদিও যুক্তরাষ্ট্রের অর্থনীতি এখন শক্তিশালী পর্যায়ে রয়েছে, তারপরও ব্যবসায়ী ও বিনিয়োগকারীরা ভবিষ্যত নিয়ে উদ্বিগ্ন। 

চীনের অভিযোগ, বিশ্বের অর্থনৈতিক ইতিহাসে সবচেয়ে বড় বাণিজ্য যুদ্ধের শুরু করেছে যুক্তরাষ্ট্র। জানা গেছে, যুক্তরাষ্ট্রের বাজারে চীনা পণ্যের আমদানিতে ২৫ শতাংশ শুল্কারোপ ইতোমধ্যে কার্যকর শুরু হয়েছে। ৩ হাজার ৪শ’ কোটি ডলারের চীনা পণ্যের ওপর এ শুল্ক কার্যকর হয়েছে। এর জবাবে ৫৪৫টি মার্কিন পণ্যের ওপর সমহারে ২৫ শতাংশ শুল্ক আরোপ করেছে চীন। দু’দেশই ৬ জুলাই শুক্রবার থেকে তা চালু করল।

You can share this post on
Facebook

0 মন্তব্য

মন্তব্য করতে লগইন করুন অথবা নিবন্ধন করুন ।