কক্সবাজারে 'বন্দুকযুদ্ধে' দুই রোহিঙ্গাসহ নিহত ৩

news-details
দেশজুড়ে

।। কক্সবাজার প্রতিনিধি ।।

কক্সবাজার জেলায় ‘বন্দুকযুদ্ধে’ এক রাতেই দুই রোহিঙ্গাসহ তিনজন নিহত হয়েছেন।

মঙ্গলবার ভোরে টেকনাফের শামলাপুর ও কক্সবাজার শহরের কাটাপাহাড় এলাকায় বন্দুকযুদ্ধের ঘটনা ঘটে।

নিহতরা হলেন-টেকনাফের শামলাপুর রোহিঙ্গা শিবিরের আব্দুর রহিমের ছেলে আজিম উল্লাহ (২০), উখিয়ার জামতলী রোহিঙ্গা শিবিরের মৃত রহিম আলীর ছেলে আব্দুস সালাম (৫২) ও কক্সবাজার শহরের পাহাড়তলী এলাকার জহির হাজীর ছেলে ছৈয়দুল মোস্তফা প্রকাশ ভুলু।

টেকনাফ মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) প্রদীপ কুমার দাশ জানিয়েছেন, দালালরা রোহিঙ্গাদের পাচারের উদ্দেশ্যে জড়ো করছে-এমন খবর পেয়ে টেকনাফ থানা পুলিশের একটি দল শামলাপুর এলাকায় অভিযান চালায়। পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে পাচারকারীরা পুলিশকে লক্ষ্য করে গুলি করতে থাকে। এক পর্যায়ে আত্মরক্ষার্থে পুলিশও পাল্টা গুলি ছোড়ে। কিছুক্ষণ পরে আক্রমণকারীরা পালিয়ে গেলে ঘটনাস্থলে তল্লাশি চালানো হয়। এসময়ে দুইজনকে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় পাওয়া যায়। আহতদের টেকনাফ হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন। পরে এদের পরিচয় শনাক্ত করা হয়।

ওসি জানান, নিহত দুই রোহিঙ্গা দীর্ঘদিন ধরে মানবপাচারে জড়িত ছিলেন। ঘটনাস্থল থেকে দু’টি আগ্নেয়াস্ত্র ও গুলি উদ্ধার করা হয়েছে।

এদিকে কক্সবাজার শহরের পাহাড়তলি এলাকার চিহ্নিত সন্ত্রাসী ও ইয়াবা ব্যবাসায়ী ছৈয়দুল মোস্তফা প্রকাশ ভুলু বন্দুকযুদ্ধে নিহত হয়েছেন।

সোমবার দিবাগত রাত আড়াইটার দিকে কক্সবাজার শহরের কাটাপাহাড় এলাকায় বন্দুকযুদ্ধ হয়।

কক্সবাজার সদর মডেল থানার ওসি মো. ফরিদ উদ্দিন খন্দকার জানান, ছৈয়দুলকে নিয়ে কাটাপাহাড়ে অস্ত্র উদ্ধার অভিযানে গেলে তার বাহিনীর সন্ত্রাসীরা পুলিশকে লক্ষ্য করে গুলি ছোড়ে। এসময় পুলিশও পাল্টা গুলি করলে তিনি গুলিবিদ্ধ হন। তাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত  ঘোষণা করেন।

ওসি জানান, ঘটনাস্থল থেকে ৪০০ পিস ইয়াবা, একটি এলজি, দুই রাউন্ড তাজা কার্তুজ ও ছয়টি খালি খোসা উদ্ধার করা হয়েছে। ছৈয়দুলের বিরুদ্ধে মাদক, অস্ত্রসহ বিভিন্ন অভিযোগে মামলা রয়েছে।

 

You can share this post on
Facebook

0 মন্তব্য

মন্তব্য করতে লগইন করুন অথবা নিবন্ধন করুন ।