কান মাতাবেন এ আর রহমান

news-details
বিনোদন

আমাদের বিনোদন ডেস্ক

২০১৫ সাল থেকে শোনা যাচ্ছে সুরকার ও সংগীত পরিচালক এ আর রহমান চলচ্চিত্র পরিচালক হিসেবে খাতা খুলতে যাচ্ছেন। গত বছর কানের ইনটেল করপোরেশনের স্টলে ‘লে মুস্ক’ নামে সেই ছবির প্রদর্শনী হয়। এ বছর কান চলচ্চিত্র উৎসবে ‘সেন্ট অব আ সং’ শিরোনামে সেই ছবির একটি গান পরিবেশন করবেন তিনি।

এই পরিবেশনাকে এ আর রহমান বলেছেন ‘সংগীতের অনুভবের অভিজ্ঞতা’। পরিচালক এ আর রহমানের এই ছবিতে মূল চরিত্রে অভিনয় করেছেন ফ্রান্সের নোরা আরনেজেদার এবং ব্রিটিশ অভিনেতা গাই বারনেট। ইতালির রাজধানী রোমে ১৩ দিনে ছবিটির শুটিং হয়। এর আগে মিড ডেকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে তিনি জানিয়েছেন, ছবিটি ভারতীয় সিনেমা হলে মুক্তি দেওয়া হবে না। কারণ, ছবিটি যে ধরনের পর্দায় স্ক্রিনিং করতে হবে, উপমহাদেশে সেই ধরনের হল তৈরিই হয়নি।

এ আর রহমান বলেন, ‘“লে মুস্ক”-এর মতো স্বল্পদৈর্ঘ্য ছবির মুক্তির জন্য ভিআর (ভার্চ্যুয়াল রিয়েলিটি) সবচেয়ে ভালো মাধ্যম। দুঃখজনকভাবে আমাদের থিয়েটারগুলো সে জন্য এখনো তৈরি না। ভিআরের শর্ত পূরণ করে—এমন কোনো হল আমাদের নেই। তাই এ ধরনের সিনেমা প্রথমবারের মতো তৈরি করা একটা বড় চ্যালেঞ্জ।’

এই ছবির বিষয়বস্তু সম্পর্কে এ আর রহমান বলেন, ‘প্রতিদিনের মতো আমি আমার স্ত্রীর সঙ্গে ঘরোয়া কথা বলছিলাম। সে আবার সুগন্ধি খুব পছন্দ করে। তখন সে আমাকে সুগন্ধী নিয়ে একটা ছবি বানাতে পরামর্শ দেয়। সেই ছবিটিই “লে মুস্ক”।’

এই ছবির চিত্রনাট্য লিখেছেন এ আর রহমান আর তাঁর স্ত্রী সায়রা বানু। ছবিটি জন্ট ওয়ান নামের অত্যাধুনিক দুটি ক্যামেরা দিয়ে নির্মিত। পুরো ৩৬০ ডিগ্রির আবহকে ধারণ করার জন্য প্রতিটি ক্যামেরায় ছিল ২৪টি করে সেন্সর। প্রযুক্তির সর্বোচ্চ ব্যবহার থাকলেও ছবিটি প্রদর্শনের কোনো ব্যবস্থা না থাকায় ভারতীয় দর্শক আপাতত ছবিটি থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন।

গত বছর প্রথম আলোর নিজস্ব প্রতিবেদক কানে ছবিটি দেখার অভিজ্ঞতা বর্ণনা করেছেন এভাবে, ‘রহমানের “লে মুস্ক” কোনো গড়পড়তা ভিআর ছবি নয়। সব ইন্দ্রিয়কে ব্যবহার করে এ ছবি উপভোগ করতে হবে। এর জন্য উন্নত ভিআর গিয়ারের পাশাপাশি দরকার ডিমের মতো দেখতে “মোশন কন্ট্রোল রিগড চেয়ার”। যখন এই চেয়ারে বসে “লে মুস্ক”-এর অংশবিশেষ দেখলাম, তখনই বুঝে নিয়েছি, এ প্রযুক্তি এত জলদিই উপমহাদেশের প্রেক্ষাগৃহগুলোয় আসছে না। চেয়ারে হেলান দিয়ে বসে চোখে ভিআর গিয়ার পরার পর বেশ আরামই বোধ হবে। ছবি শুরু হওয়ার পর মনে হবে, চলে গেছি ভিন্ন কোনো জগতে। চেয়ারটি ছবির দৃশ্য-কাহিনির সঙ্গে তাল মিলিয়ে আগে-পিছে, ডানে-বাঁয়ে কাঁপছে। সেই সঙ্গে নির্দিষ্ট কিছু দৃশ্যের সময় হঠাৎ করেই একধরনের সুঘ্রাণ এসে লাগছে নাকে।’

এ আর রহমান এখন তাঁর পরবর্তী ছবি ‘নাইনটি নাইন সংস’-এর কাজ নিয়ে ব্যস্ত। এই ছবিটি রোমান্টিক মিউজিক্যাল ধাঁচের। ছবিটির কাহিনি ও চিত্রনাট্য লিখেছেন এ আর রহমান এবং পরিচালক বিশ্বাস কৃষ্ণমূর্তি। অন্যদিকে, এ আর রহমান ছবিটির একজন সহপ্রযোজকও। কাহিনিকার ও সহপ্রযোজক হিসেবে ‘নাইনটি নাইন সংস’ তাঁর প্রথম ছবি।

এ আর রহমান নিশ্চিত করেছেন ‘নাইনটি নাইন সংস’ মানে এই না যে ছবিতে ৯৯টা গান থাকবে। তবে গাননির্ভর এই ছবিতে ১৪ বা ১৫টা গান থাকবে। সেগুলো হিন্দি, তামিল ও তেলেগু ভাষার। এ আর রহমান এই গানগুলোর ওপর প্রায় বছর পাঁচেক ধরে কাজ করছেন। এই ছবিতে কয়েকজন আন্তর্জাতিক শিল্পী কাজ করেছেন। মাইকেল জ্যাকসন থেকে শুরু করে অস্কারজয়ী মিউজিক্যাল রোমান্টিক ফিল্ম ‘লা লা ল্যান্ড’-এর মিউজিকে কাজ করা র‍্যান্ডি কারবারও আছেন এই প্রজেক্টের সঙ্গে। 
২০১৯ সালের ২১ জুন ছবিটি মুক্তির কথা রয়েছে।

কান চলচ্চিত্র উৎসবে পা রেখেই ইনস্টাগ্রামে কান চলচ্চিত্র উৎসবের ছবি ভক্ত ও অনুসারীদের সঙ্গে শেয়ার করেছেন এ আর রহমান। গতকাল মঙ্গলবার কান উৎসবের প্রথম দিনে আপেলের জুস আর ফলের সালাদ দিয়ে ইফতার করেছেন তিনি।

এই উৎসব চলবে ২৫ মে পর্যন্ত। কঙ্গনা রনৌত, দীপিকা পাড়ুকোন, সোনম কাপুরসহ আরও অনেক ভারতীয় তারকা মাতাবেন কানের রেড কার্পেট।

You can share this post on
Facebook

0 মন্তব্য

মন্তব্য করতে লগইন করুন অথবা নিবন্ধন করুন ।