স্বাধীনতাবিরোধীদের নির্মূলে জনরায় পেয়েছি: মোহাম্মদ নাসিম

news-details
রাজনীতি

।। ‍নিজস্ব প্রতিবেদক ।।

মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বাংলাদেশ চলতে থাকবে বলে দৃঢ়প্রত্যয় ব্যক্ত করেছেন ১৪ দলের মুখপাত্র ও স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম। তিনি বলেন, ‘রাজাকার ও স্বাধীনতাবিরোধী শক্তিকে চিরতরে নির্মূল করার জন্য জনরায় পেয়েছি। এটা অব্যাহত রাখার চেষ্টা করবো। আমরা সেই লক্ষ্যে কাজ করে যাবো।’

বৃহস্পতিবার দুপুরে ধানমন্ডি ৩২ নম্বরে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে ১৪ দলের নেতারা ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদনের পর তিনি এসব কথা বলেন।

মোহাম্মদ নাসিম বলেন, ‘এবার বিরোধী দলে যারা থাকবে, তারাও মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাসী হবে।’ তিনি আরও বলেন, ‘জনগণ প্রধানমন্ত্রীর ওপর আস্থা রেখেছে। আমাদের চ্যালেঞ্জ হলো সন্ত্রাসমুক্ত বাংলাদেশ গড়ার লক্ষ্যে নিরলসভাবে কাজ করে যাওয়া।’

শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশ জঙ্গিমুক্ত হয়েছে মন্তব্য করে ১৪ দলের মুখপাত্র বলেন, ‘আজকে আলোকিত বাংলাদেশ হয়েছে। বাংলাদেশের অর্থনৈতিক উন্নয়ন ঘটেছে। তথ্য প্রযুক্তির বিকাশ ঘটেছে। তরুণ সমাজ ও নারীরা পর্যন্ত আজকে মুক্তিযুদ্ধের চেতনার বিজয়ের জন্য কাজ করেছে।’

বিএনপি ও জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট শপথ না নিয়ে নির্বাচন কমিশনে স্মারকলিপি দেওয়া সংক্রান্ত এক প্রশ্নের জবাবে মোহাম্মদ নাসিম বলেন, ‘একটি গণতান্ত্রিক দেশে যেকোনো জোট বা দল প্রতিবাদ করতেই পারে। এটাকে আমরা ইতিবাচকভাবে দেখি। বিএনপি ও ঐক্যফ্রন্টের নেতারা যদি স্মারকলিপি দিয়ে থাকেন, তাহলে ভালো। আমরা আশা করবো, তারা সংসদে শপথ গ্রহণ করবেন, সংসদে তারা ভূমিকা রাখবেন।’

এবার সংসদে শক্তিশালী বিরোধী দল প্রতিষ্ঠা হবে কি না, জানতে চাইলে মোহাম্মদ নাসিম বলেন, ‘আমাদের সবারই আশা, বিরোধী দলের আসনে যারা বসবেন, সংখ্যায় যতই হোক, তারা ভূমিকা রাখতে পারবেন। সরকারকে সহযোগিতা করতে পারবেন। গণতন্ত্রকে প্রাতিষ্ঠানিক রূপ দেওয়া ও এগিয়ে নেওয়ার লক্ষ্যে তারা ভূমিকা রাখবেন। স্বাধীনতার পরে বঙ্গবন্ধুর সময় জাতির জনকের উপস্থিতিতে নামমাত্র বিরোধী দলে আসন ছিল। তখনো কিন্তু তারা বিরোধিতা করেছে। আসন দিয়ে বিচার করলে হবে না, সংসদে তাদের ভূমিকা রাখাটাই বড় বিষয়। তারা সে ভূমিকা রাখবেন, এটাই আমি আশা করি। তারা সংসদে আসুক, ভূমিকা রাখুক, আলোচনা করুক, আমরা তাদের সহযোগিতা করবো।’

এ সময় আরও উপস্থিত ছিলেন জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল (জাসদ-ইনু) সভাপতি ও তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু, নৌ পরিবহনমন্ত্রী শাজাহান খান, জাসদের সাধারণ সম্পাদক শিরীন আকতার, সাম্যবাদী দলের সাধারণ সম্পাদক দিলীপ বড়ুয়া, তরিকত ফেডারেশনের নজিবুর বশর মাইজভান্ডারী, ঢাকা মহানগর ১৪ দলের সমন্বয়ক শাহে আলম মুরাদ প্রমুখ।

You can share this post on
Facebook

0 Comments

If you want to comment please Login. If you are not registered then please Register First