ব্রেকিং নিউজ

তুষারের ছোট্ট একটি ভাল কাজ

news-details
জাতীয়

আমাদের প্রতিবেদক

চলতে ফিরতে কত কিছুইতো চোখ এড়িয়ে যায় আমাদের। অনেক গুরুত্বপূর্ণ হলেও যেন দেখে না দেখার ভান করে অবলিলায় অনেকে কিছুই এড়িয়ে যাই আমরা। নিজেকে সচেতন বলে দাবি করলেও তার নমুনা কিছুই থাকেনা আমাদের কাজে কর্মে। বড় কিছুর কথা বাদই দিলাম। চারপাশে এমন অনেক ছোট কাজ করার আছে, যা করলে সমাজের ভাল হয়, সবার মঙ্গল হয়, করারও সামর্র্থ আছে। কিন্তিু আমরা তাও না করে এড়িয়ে চলি প্রতিনিয়ত। কলেজছাত্র তুষারও পারত এড়িয়ে যেতে। কিন্তু গাইবান্ধার তরুণ এ কলেজছাত্র তা না করে ছোট্ট তবে মহৎ উদ্দেশ্যে একটি ভাল কাজ করে দেখিয়ে দিয়েছে যে,ইচ্ছে আর আন্তরিকতার মিশেল থাকলে সব সম্ভব।

গাইবান্ধা-সাদুল্লাপুর-পীরগঞ্জ আঞ্চলিক মহাসড়কের সাদুল্যাপুর উপজেলার জামালপুর ইউনিয়নের মংলা বন্দর এলাকায় গাইবান্ধা ১৮ কিলোমিটারের মাইলফলকটি দীর্ঘ দিন ধরে আগাছা আর জঞ্জালে আবৃত ছিল। কর্তৃপক্ষতো দেথেইনি, চোখ পড়েনি অন্য কারুরও। শেষমেষ তা চোখে পড়লে গাইবান্ধা বিশ্ববিদ্যালয় কলেজের অর্থনীতি বিভাগের ছাত্র তৌহিদ তুষারের। দেখার পরেও কিছুটা পথ চলে যান তুষার। তবে বিবেক আর মানবিকতাবোধের তাগিদে ফিরে আসেন তিনি। আগাছায় ঢাকা পড়া মাইলফলকটি অবমুক্ত করে তবেই বাড়ির পথ ধরেন। সম্প্রতি নিজের ফেসবুক ওয়ালে এ বিষয়ে ছবিসহ ছোট্ট একটি পোস্ট দেন। সেখানে লিখেছেন, ‘ছোট্ট একটি ভালো কাজ।মাইলফলক দৃশ্যমান করতে আগাছা পরিস্কার।গাইবান্ধা-সাদুল্লাপুর-পীরগঞ্জ আঞ্চলিক মহাসড়কের ১৮ কিলোমিটারে মাইলফলকটির সামনে আগাছা ও ছোট গাছ থাকায় তা দুর থেকে বা কাছে থেকে স্পষ্ট ভাবে দেখা যাচ্ছিলো না। তাই আগাছা ও গাছপালা সরিয়ে মাইলফলক টি দৃশ্যমান করা হলো। আমাদের সকলের উচিত প্রতিদিন কমপক্ষে একটি করে ভালো কাজ করা।ঘটনাটি এলাকায় ব্শে নাড়া দিয়ে সবার মনে।

এ প্রসঙ্গে তৌহিদ তুষার আমাদের পত্রিকাকে বলেন, ’২৯ মে বুধবার মোটরবাইকে জেলার সাদুল্যাপুর উপজেলার মিরপুর-মাদারগঞ্জ বাজার থেকে তুলশিঘাটে নিজ বাড়িতে ফিরছিলাম। তখন দেখলাম মাইলফলকে আমার জেলার নাম দেখা গেলেও কত কিলোমিটার তা বুঝা যাচ্ছেনা। কিছুটা পথ পার হয়ে আসার পর ভাবলাম আমার জেলার নাম এরকম আগাছায় ভরা থাকবে? বিষয়টা খারাপ দেখায়, এমনটা ভেবে সেখোনে গিয়ে আগাছা পরিস্কার করি। আর সচেতনতা বৃদ্ধিতে ফেসবুকে একটা পোস্ট দিয়েছি।’ 

 

তুষার তার ভবিষ্যৎ পরিকল্পনার কথা জানিয়ে বলেন, ‘আমি আমার সচেতনতার জায়গা থেকে কাজটা করেছি। ইচ্ছে আছে গাইবান্ধা জেলার সব সড়কের মাইলেজগুলো পরিদরর্শন করব এবং আগাছা থাকলে পরিস্কার করে দৃশ্যমান করব।’ আরো বলেন, ‘আমাদের চারপাশের প্রয়োজনীয় অনেক কিছুই অপ্রয়োজনীয় আগাছা দিয়ে ঢেকে আছে। তাই আমাদের সকলের উচিত এসব আগাছা পরিষ্কার করা। দৈনিক অন্তত একটি করে ভালো কাজ করা।’

 

You can share this post on
Facebook

0 মন্তব্য

মন্তব্য করতে লগইন করুন অথবা নিবন্ধন করুন ।