কারাগারে খুন: ৫ দিনের রিমান্ডে রিপন

news-details
আইন-আদালত

চট্টগ্রাম প্রতিনিধি

চট্টগ্রাম কেন্দ্রীয় কারাগারে দুর্ধর্ষ সন্ত্রাসী ও যুবলীগকর্মী অমিত মুহুরি হত্যার মামলায় আসামি রিপন নাথকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য পাঁচ দিনের হেফাজতে নেওয়ার অনুমতি দিয়েছে আদালত। 

সোমবার চট্টগ্রামের অতিরিক্ত মুখ্য মহানগর হাকিম মহিউদ্দিন মুরাদ আসামিকে নেওয়ার গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) আবেদনের শুনানি করে এ আদেশ দেন।

নগর পুলিশের অতিরিক্ত উপ-কমিশনার (প্রসিকিউশন) মো. কামরুজ্জামান বলেন, যেহেতু আসামি রিপন নাথ আগে থেকেই কারাগারে আছে, সেজন্য তদন্তকারী কর্মকর্তা তাকে মামলায় গ্রেফতার দেখানোর জন্য আদালতে আবেদন করেছিলেন। একইসঙ্গে ১০ দিন রিমান্ডে রেখে জিজ্ঞাসাবাদের আবেদন করেছিলেন। আদালত রিপনকে গ্রেপ্তার দেখানোর পাশাপাশি ৫ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন।

গত ২৯ মে রাত ১১ টার দিকে চট্টগ্রাম কেন্দ্রীয় কারাগার থেকে অমিতকে গুরুতর জখম অবস্থায় চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হয়। রাত ১টার দিকে তাকে মৃত ঘোষণা করেন দায়িত্বরত চিকিৎসক। অমিত মুহুরী নিহতের ঘটনায় পরদিন নগরীর কোতোয়ালী থানায় মামলা দায়ের করেন চট্টগ্রাম কেন্দ্রীয় কারাগারের জেলার নাশির আহমেদ। মামলায় অমিত যে কক্ষে আহত হয়েছেন অর্থাৎ ৩২ নম্বর সেলের ৬ নম্বর কক্ষের আরেক কয়েদি রিপন নাথকে (২৭) আসামি করা হয়েছে।

মামলায় কারা কর্তৃপক্ষ দাবি করেছে- রিপনের সঙ্গে কথা কাটাকাটি ও মারামারির জেরে অমিতকে মাথায় ইট দিয়ে আঘাত করে খুন করা হয়েছে। তবে পুলিশ ও জেলা প্রশাসনের কর্মকর্তারা কারাগারে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে বলেছেন, ঘুমন্ত অবস্থায় অমিতকে মাথায় ইট দিয়ে আঘাত করে হত্যা করা হয়েছে।

মামলা দায়েরের পর সিএমপি কমিশনারের নির্দেশে সেটি তদন্তের দায়িত্ব নেয় নগর গোয়েন্দা পুলিশ। এদিকে কারাগারে অমিত খুনের ঘটনা তদন্তে কারা অধিদপ্তর ও চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসন আলাদা দু’টি কমিটি করেছে।

কারা অধিদপ্তরের গঠিত তিন সদস্যের কমিটির নেতৃত্ব দিচ্ছেন অতিরিক্ত কারা মহাপরিদর্শক কর্নেল মো. আবরার হোসেন। কারা অধিদপ্তরের চট্টগ্রাম রেঞ্জের উপ-মহাপরিদর্শক (ডিআইজি-প্রিজন) ফজলুল হক এবং নোয়াখালী কারাগারের জ্যেষ্ঠ তত্ত্বাবধায়ক মনির হোসেন কমিটিতে সদস্য হিসেবে আছেন। এছাড়া, জেলা প্রশাসকের গঠিত এক সদস্যের তদন্ত কমিটির দায়িত্ব পেয়েছেন অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট মো. মাশহুদুল কবীর।

চট্টগ্রাম নগরীর নন্দনকাননে বন্ধুকে নৃশংসভাবে খুনের পর ড্রামে ভরে এসিড দিয়ে লাশ গলিয়ে দিঘীতে ফেলার মামলায় ২০১৭ সালের ২ সেপ্টেম্বর ‘ভয়ঙ্কর সন্ত্রাসী’ অমিত মুহুরীকে (৩২) গ্রেপ্তার করেছিল পুলিশ। অমিত যুবলীগের কেন্দ্রীয় উপ-অর্থ বিষয়ক সম্পাদক হেলাল আকবর চৌধুরী বাবরের বলয়ে সক্রিয় ছিল।

You can share this post on
Facebook

0 মন্তব্য

মন্তব্য করতে লগইন করুন অথবা নিবন্ধন করুন ।