নেত্রকোনায় এমপি বেলালের বিরুদ্ধে মামলা

news-details
দেশজুড়ে

নেত্রকোনা প্রতিনিধি

নেত্রকোনা পূর্বধলা উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে আচরণবিধি লংঘনের অভিযোগে ওয়ারেসাত হোসেন বেলালের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে।

প্রথম ধাপে উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে আচরণবিধি লংঘনের অভিযোগে নেত্রকোনা-৫ আসনের সরকার দলীয় সংসদ সদস্য ওয়ারেসাত হোসেন বেলালের বিরুদ্ধে পূর্বধলা থানায় এ মামলা দায়ের করা হয়েছে।

রোববার বিকেলে জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা আব্দুল্লাহ আল মোতাসিম বাদী হয়ে উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তার মাধ্যমে নেত্রকোনা জেলার পূর্বধলা থানায় এই মামলা দায়ের করেন।

এদিকে নেত্রকোনা অতিরিক্ত পুলিশ সুপার এস এম আশরাফুল আলম রবিবার রাত ৮টার দিকে মামলার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন এবং আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা জানান, প্রথম ধাপের পূর্বধলা উপজেলা পরিষদ নির্বাচন হওয়ার কথা থাকলেও আচরণবিধি লংঘনের কারণে নির্বাচন স্থগিত হয়ে যায়। পরে তদন্তে এমপি বেলালের বিরুদ্ধে অভিযোগ প্রমাণিত হয়। এরই পরিপ্রেক্ষিতে ১২ জুন তার বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করার নির্দেশ দেন নির্বাচন কমিশন।

স্থগিত হওয়া উপজেলা পরিষদ নির্বাচন আগামী ১৮ জুন অনুষ্ঠিত হবে বলেও জানান তিনি।

নির্বাচনী কার্যালয় সূত্রে আরো জানা গেছে, জেলার পূর্বধলা উপজেলা পরিষদের নির্বাচন অনুষ্ঠানের কথা ছিল গত ১০ মার্চ। কিন্তু স্থানীয় সংসদ সদস্য ওয়ারেসাত হোসেন বেলাল চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী মাছুদ আলম তালুকদার টিপুর পক্ষে নির্বাচনী বিধি ভঙ্গ করে প্রভাব বিস্তারের অভিযোগ উঠে। এই নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগ দলীয় প্রার্থী জাহিদুল ইসলাম সুজন ও আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী মাছুদ আলম তালুকদার টিপুর মধ্যে সরাসরি প্রতিদ্বন্দ্বিতা হচ্ছে।

এ অবস্থায় নির্বাচন কমিশন নির্বাচনের আগে ৮ মার্চ নির্বাচন স্থগিত ঘোষণা করে। পরে কমিশনের একজন যুগ্ম সচিবকে দিয়ে ঘটনার তদন্ত করানো হয়। তদন্তে নির্বাচনী বিধিমালা ২০১৬ এর ২২ বিধি, ২০১৩ এর বিধি ৭০ (১) (ক) , ৭৩ (১) (ক) ও ৭৩ (১) (ক) (অ) ধারা ভঙ্গের প্রমাণ পান তদন্ত কর্মকর্তা। এরই পরিপ্রেক্ষিতে গত মঙ্গলবার রাতে কমিশন রিটার্নিং কর্মকর্তাকে থানায় নিয়মিত মামলা করার নির্দেশ দেয়।

নির্বাচনে ২ জন চেয়ারম্যান পদে, ৫ জন নারী ভাইস চেয়ারম্যান ও ৭জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন ভাইস চেয়ারম্যান পদে। ১১ টি ইউনিয়নের এই উপজেলায় ৭৪টি কেন্দ্রে ২ লাখ ২৪ হাজার ৫৫৮জন তাদের ভোটাধিকার প্রদান করবেন।

জেলা রিটার্নিং কর্মকর্তা বলেন, আইন শৃংখলা বাহিনীর কর্মকর্তাদের নিয়ে সভা করা হয়েছে। প্রতি কেন্দ্রে ৮ থেকে ১০জন করে পুলিশ দায়িত্ব পালন করবে। যেসব কেন্দ্র অধিকগুরুত্বপূর্ণ ওইসব কেন্দ্রে আইন শৃংখলা বাহিনীর অতিরিক্ত সদস্যরা কাজ করবেন। থাকবে স্ট্রাইকিং ফোর্স, মোবাইল টিম। ৫ প্লাটুন বিজিবি দায়িত্বে নিয়োজিত থাকবে। প্রায় ২০ জন হাকিমও দায়িত্ব পালন করবেন। আইন শৃংখলা বাহিনী এলাকায় শান্তি বজায় রাখতে নির্বাচনের আগে-পরে কাজ করবে বলে জানিয়েছেন রিটার্নিং কর্মকর্তা।

You can share this post on
Facebook

0 মন্তব্য

মন্তব্য করতে লগইন করুন অথবা নিবন্ধন করুন ।