স্মার্টফোনে বর্ধিত কর ও আমদানি শুল্কহার প্রত্যাহারের দাবি

news-details
অর্থনীতি

আমাদের প্রতিবেদক

২০১৯-২০ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেটে স্মার্টফোনের ওপর বর্ধিত কর ও আমদানি শুল্কহার প্রত্যাহারের দাবি জানিয়েছে বাংলাদেশ মোবাইল ফোন ব্যবসায়ী অ্যাসোসিয়েশন (বিএমবি)।

আজ বুধবার জাতীয় প্রেসক্লাবে বাজেট পরবর্তী সংবাদ সম্মেলনে এ দাবি জানায় সংগঠনটি। 

এতে জানানো হয়, ২০১৮-১৯ অর্থবছরে আমদানি শুল্ক, ভ্যাট ও অন্যান্য খরচসহ মোবাইল ফোন আমদানিতে করের হার রয়েছে ৩০ দশমিক ৭৫ শতাংশ। আসন্ন ২০১৯-২০ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেটে এ করহার সবমিলিয়ে ৫৭ দশমিক ৩১ শতাংশে দাঁড়াবে, যা আগের বছরের তুলনায় ৯০ শতাংশ বেশি। এটি কর্যকর হলে ক্ষতিগ্রস্ত হবে মোবাইল ফোন ব্যবসায়ীরা। সেই সঙ্গে বহু মানুষ কর্মসংস্থান হারাবে।

জানা গেছে, বর্তমানে যে সব ব্র্যান্ড বাংলাদেশে মোবাইল ফোন উৎপাদন শুরু করেছে, সে সব মোবাইলের গুণগতমান সম্পন্ন করে বাজারে সরবরাহ করতে আরও দুই থেকে তিন বছর সময় লাগবে। সে কারণে সংবাদ সম্মেলনে বিদেশি ব্র্যান্ডগুলোকে সুবিধা না দিয়ে দেশি প্রতিষ্ঠানগুলোকে সুযোগ দেয়ার অনুরোধ জানান বিএমবি'র সভাপতি।

এ ছাড়াও বাংলাদেশে স্মার্টফোন উৎপাদনে সমৃদ্ধি এবং কর্মসংস্থানের কথা চিন্তা করে অতিরিক্ত শুল্ক প্রত্যাহারের দাবি জানায় বিএমবিএ। 

উল্লেখ্য, গত ১৩ জুন ২০১৯-২০ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেট উপস্থাপন করা হয়। বাজেটে স্মার্টফোন আমদানি শুল্কহার ২৫ শতাংশ নির্ধারণ করা হয়েছে। চলতি অর্থবছরের স্মার্টফোন আমদানি শুল্কহার ১০ শতাংশ রয়েছে। অর্থাৎ স্মার্টফোনে আমদানি ব্যয় বাড়বে ১৫ শতাংশ। তবে আমদানি পর্যায়ে ফিচার ফোনের ক্ষেত্রে বর্তমানে ১০ শতাংশ আমদানি শুল্ক প্রযোজ্য রয়েছে।

You can share this post on
Facebook

0 মন্তব্য

মন্তব্য করতে লগইন করুন অথবা নিবন্ধন করুন ।