অপহরণের ৮ দিনেও উদ্ধার হয়নি চাটখিলের বীথি

news-details
দেশজুড়ে

নোয়াখালী প্রতিনিধি

নোয়াখালী জেলার চাটখিল উপজেলায় বীথি আক্তার (১৯) নামের এক গৃহবধূকে অপহরণের দীর্ঘ ৮দিনেও উদ্ধার করতে পারেনি থানা পুলিশ।

গত ১৭ই সকাল ১১টায় উপজেলার সোমপাড়া বাজার এলাকা থেকে ওই গৃহবধূ অপহরণ হন। তাৎক্ষণিক খবর পেয়ে ওইদিন সম্ভাব্য সব জায়গায় খোঁজাখুঁজি করে বীথিকে না পেয়ে তার বাবা বেলাল হোসেন ও মা মনি বেগম রাতে চাটখিল থানায় অপহরণ মামলা করতে যান। 

পরিবারের অভিযোগ, এ সময় অপহরণ মামলা না নিয়ে বিষয়টি নিখোঁজ ডায়রি (জিডি নং-৬৮০) হিসেবে অন্তর্ভূক্ত করে তাদের থানা থেকে তাড়িয়ে দেয়া হয়। 

গৃহবধূ বীথি আক্তার চাটখিল উপজেলার পাঁচঘরিয়া গ্রামের ভারদার বাড়ির বেলাল হোসেনের মেয়ে। স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, চাটখিল উপজেলার পাঁচঘরিয়া গ্রামের ভারদার বাড়ির বেলাল হোসেনের মেয়ে বীথি আক্তারের সঙ্গে দীর্ঘ ৮মাস আগে পার্শ্ববর্তী লক্ষ্মীপুর জেলা সদরের বদরপুর গ্রামের মোল্লা বাড়ির প্রবাসী সাফায়েত উল্যার পারিবারিকভাবে বিয়ে হয়। সুখে-শান্তিতে চলতে থাকে তাদের পারিবারিক জীবন। 

গত ১৭ই জুন বীথি তার বাবার বাড়ি থেকে নানার বাড়ি চাটখিলের শিবরামপুর ছৈয়াল বাড়িতে বেড়াতে যান।

পরবর্তীতে বীথি নানার বাড়ির পাশে সোমপাড়া বাজারে গেলে পূর্ব থেকে ওঁৎপেতে থাকা অপরিচিত কয়েকজন যুবক তাকে জোরপূর্বক সিএনজিতে করে তুলে নিয়ে যায়। 

এ ব্যাপারে বীথির মা মনি বেগম জানান, মেয়েকে কোথাও না পেয়ে থানায় গেলে ওসি মামলা না নিয়ে নিখোঁজ ডায়রী করতে বাধ্য করেছেন। আর অপহরণের ২দিন পর আমার মেয়ে বীথি ০১৮৬৬৯৫৯৭০৮ নাম্বারে ফোন দিয়ে তাকে উদ্ধারের জন্য ব্যাপক কান্নাকাটি করেন। 

পরবর্তীতে ওই মোবাইল নাম্বার নিয়ে থানায় গেলে পুলিশ আমার মেয়েকে উদ্ধারের ব্যাপারে নানা তালবাহানা করছে। আমি আমার মেয়ে বীথি আক্তারকে উদ্ধারের জন্য প্রশাসনের উচ্চ পদস্থ কর্মকর্তাদের নিকট আকুল আবেদন জানাচ্ছি। 

চাটখিল থানার ওসি মো. আনোয়ারুল ইসলাম জানান, বিষয়টি পরকীয়া সংক্রান্ত  কিনা তা জানার চেষ্টা করছি। তারপরও প্রযুক্তির সহায়তায় তাকে উদ্ধারের চেষ্টা চলছে। 

You can share this post on
Facebook

0 মন্তব্য

মন্তব্য করতে লগইন করুন অথবা নিবন্ধন করুন ।