টেকনাফে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ যুবক নিহত

news-details
দেশজুড়ে

টেকনাফ (কক্সবাজার) প্রতিনিধি

কক্সবাজারের টেকনাফে পুলিশের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ মুফিদ আলম (৩৮) নামে এক যুবক নিহত হয়েছেন। পুলিশের দাবি তিনি চিহ্নিত মাদক কারবারী। 

রবিবার ভোরে উপজেলার হোয়াইক্যং ইউনিয়নের নয়াপাড়া বালিকা মাদ্রাসার পিছনে নাফ নদীর পাড়ে এই ঘটনা ঘটে। এ সময় ঘটনাস্থল থেকে ২টি দেশিয় অস্ত্র, ১০ রাউন্ড কার্তুজ ও ৫ হাজার পিস ইয়াবা উদ্ধার করা হয়েছে। 

নিহত মুফিদ আলম টেকনাফ উপজেলার হোয়াইক্যং ইউনিয়নের নয়াপাড়া এলাকার নজির আহম্মদের ছেলে। 

এ ঘটনায় তিন পুলিশ সদস্য আহত হয়েছে। তারা হলেন- এএসআই অহিদ উল্লাহ, কনস্টেবল রুবেল মিয়া ও মনির হোসাইন।

টেকনাফ মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) প্রদীপ কুমার দাশ বলেন, শনিবার গভীর রাতে এএসআই অহিদের নেতৃত্বে একদল পুলিশ মাদক উদ্ধার অভিযানের সময় হোয়াইক্যং নয়াপাড়া বাজার এলাকা থেকে মাদক কারবারী মুফিদ আলমকে আটক করে। পরে ভোরে তার স্বীকারোক্তীতে আমার নেতৃত্বে পুলিশের একটি টিম হোয়াইক্যং নয়াপাড়া বালিকা মাদরাসার পেছনে নাফ নদীর পাশে অভিযানে গেলে ইয়াবা কারবারিরা পুলিশকে লক্ষ্য করে গুলি চালায়। আত্মরক্ষার্থে পুলিশও পাল্টা গুলি চালায়। কিছুক্ষণ গুলিবিনিময়ের পর ইয়াবা কারবারীরা পালিয়ে যায়। পরে ঘটনাস্থল থেকে অস্ত্র, গুলি ও ইয়াবাসহ গুলিবিদ্ধ অবস্থায় মুফিদকে উদ্ধার করে টেকনাফ উপজেলা হাসপাতাল থেকে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে কক্সবাজার সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়। সেখানে তার মৃত্যু হয়।

ওসি বলেন, নিহত মাদক কারবারীর লাশ ময়নাতদন্তের জন্য কক্সবাজার সদর হাসপাতাল মর্গে রাখা হয়েছে। তার বিরুদ্ধে মাদক ও অস্ত্রসহ একাধিক মামলা রয়েছে। এ ব্যাপারে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে।

টেকনাফ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের চিকিৎসক শংকর চন্দ্র দেবনাথ বলেন, পুলিশ এক গুলিবিদ্ধ ব্যক্তিকে নিয়ে আসেন। তার বুকে ও পেটে দুইটি গুলির আঘাত ছিল। আহত পুলিশ সদস্যদের চিকিৎসা দিয়ে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে।


 

You can share this post on
Facebook

0 মন্তব্য

মন্তব্য করতে লগইন করুন অথবা নিবন্ধন করুন ।