এমপির গাড়ি ভাঙচুর, সিটি করপোরেশনের কাউন্সিলরসহ আটক ১০

news-details
দেশজুড়ে

নারায়ণগঞ্জ প্রতিনিধি

সরকার দলীয় এক সংসদ সদস্যের (এমপি) গাড়ি ভাঙচুরের অভিযোগে নারায়ণগঞ্জ-৪ (ফতুল্লা-সিদ্ধিরগঞ্জ) আসনের বিএনপির সাবেক এমপির ছেলে গোলাম মোহাম্মদ সাদরিলসহ ১০ জনকে আটক করেছে পুলিশ। সাদরিল একই সঙ্গে নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের ৫ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর।

গতকাল বুধবার রাতে সিদ্ধিরগঞ্জের ওমরপুর এলাকার প্রবাসী কালু মিয়ার বাড়ি থেকে তাদের আটক করা হয়। 

এলাকাবাসীর বরাত দিয়ে সিদ্ধিরগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শাহীন শাহ পারভেজ জানান, সংরক্ষিত নারী আসনের এমপি সেলিমা ইসলামের আত্মীয় সালমা বেগম (২৫) ও তার স্বামী হাফেজ আহমেদ (৩২) সিদ্ধিরগঞ্জের ওমরপুর এলাকার কালুর বাড়ির চার তলায় ভাড়ায় বসবাস করেন।

ওসি জানান, এর আগে ২০১৮ সালের মে মাসে বিয়ে হয় হাফেজ ও সালমার। সম্প্রতি দুইজনের মধ্যে পারিবারিক বিষয় নিয়ে একাধিকবার ঝগড়া হয়। ওই ঝগড়া সমাধানের জন্য গতকাল বুধবার সন্ধ্যায় কুমিল্লা থেকে সিদ্ধিরগঞ্জে আসেন এমপি সেলিমা ইসলাম। বিচার-সালিস শেষে উভয় পক্ষকে মিলে যাওয়ার কথা বলে ভবনের নিচ তলায় চলে আসেন তিনি। তখন ওই ঘরের দরজা জানালা বন্ধ করে ‘বাঁচাও বাঁচাও’ চিৎকার শুরু করেন হাফেজ আহমেদ। চিৎকার শুনে এলাকাবাসী ওই বাড়ির সামনে জড়ো হয়।

পুলিশের এই কর্মকর্তা জানান, ঘটনা জানতে পেরে নাসিক ৫ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর ও বিএনপির সাবেক এমপিপুত্র সাদরিল ঘটনাস্থলে আসেন। এ সময় স্থানীয় লোকজন এমপির গাড়ি দেখে বাড়িটি ঘেরাও করে ফেলে। পরে স্থানীয় লোকজনের ভয়ে এমপি গাড়িতে না উঠে নিচ তলার একটি ফ্ল্যাটে চলে যান। এতে এলাকাবাসী ক্ষিপ্ত হয়ে এমপির গাড়ি ভাঙচুর করে। খবর পেয়ে রাত সাড়ে ৯টায় পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে এমপি সেলিমাকে উদ্ধার করে। এ সময় সালমার বাবা আব্দুল হাই ও খালাতো ভাই সোহেল উপস্থিত ছিলেন।

ওসি আরও জানান, এমপির অভিযোগের ভিত্তিতে কাউন্সিলর সাদরিল, হাফেজ আহমেদসহ ১০জনকে আটক করা হয়। তাদের জিজ্ঞাসাবাদ চলছে। তিনি ঢাকার কাকরাইলের অডিট ভবনের সুপারিন্টেন্ডেন্ট হিসেবে কর্মরত। বিষয়টি তদন্ত শেষে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

You can share this post on
Facebook

0 মন্তব্য

মন্তব্য করতে লগইন করুন অথবা নিবন্ধন করুন ।