ব্রেকিং নিউজ

হাবিপ্রবি’র প্রশাসন থেকে ৭ কর্মকর্তার পদত্যাগ

news-details
শিক্ষা

 দিনাজপুর প্রতিনিধি 

অনিয়ম, স্বেচ্ছাচারিতা, প্রশাসনে জামায়াতীকরন এবং বিতর্কিত ও আঞ্চলিকতামূলক সিদ্ধান্তের প্রতিবাদে ২ জন সহকারী প্রক্টর, ৩ জন সহকারী পরিচালকসহ ৭ জন কর্মকর্তা দিনাজপুর হাজী মোহাম্মদ দানেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (হাবিপ্রবি)র প্রশাসন থেকে পদত্যাগ করেছেন। 

আজ বুধবার সকালে তারা রেজিষ্ট্রার বরাবরে পৃথকভাবে নিজ নিজ স্বাক্ষরিত পদত্যাগপত্র জমা দেন। পদত্যাগপত্র পাওয়ার বিষয়টি স্বীকার করেছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিষ্ট্রার প্রফেসর ডা. ফজলুল হক। পদত্যাগকারীরা হলেন-বিশ্ববিদ্যালয়ের সহকারী প্রক্টর ডা. মাহমুদুল হাসান, সহকারী প্রক্টর সৌরভ পাল চৌধুরী, ছাত্র পরামর্শ ও নির্দেশনা বিভাগের সহকারী পরিচালক সাইফুল ইসলাম, একই বিভাগের সহকারী পরিচালক ডা. হায়দার আলী ও ডা. মিসরাত মাসুমা পারভেজ, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হলের সহকারী হল সুপার ফরিদুল্লাহ এবং ডরমিটরি-২-এর সহকারী হল সুপার শক্তি চন্দ্র ম-ল।

বুধবার দুপুরে এক প্রেস ব্রিফিংয়ে পদত্যাগকারীরা বলেন- বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. মু. আবুল কাশেম যোগদান করার পর থেকেই তার বিতর্কিত ও আঞ্চলিকতামূলক সিদ্ধান্ত গ্রহণ করে আসছেন। প্রশাসনে জামায়াতীকরন ও বিশ্ববিদ্যালয়ের সকল স্তরে জামায়াত-বিএনপি পন্থীদের নিদের্শনা বাস্ততবায়ন এবং প্রকৃত আওয়ামীপন্থীদের নিগৃহিত ও নিস্পেশিত করে আসছেন। বিষয়গুলোর প্রতিবাদ করা হলেও তিনি কর্নপাত না করে একটি বিশেষ এলাকার স্বার্থ বিবেচনা করে এবং জামায়াত-বিএনপির প্রকাশ্য দিক নির্দেশনায় বিশ্ববিদ্যালয়টির কার্যক্রম পরিচালনা করছেন। শুধু তাই নয়, সর্বক্ষেত্রে অনিয়ম এবং স্বেচ্ছাচারিতা করে আসছেন। তাই এমন প্রশাসনের পদ থেকে তারা পদত্যাগ করেছেন।

সহকারী প্রক্টর সৌরভ পাল চৌধুরী বলেন, এই প্রশাসন বিএনপি-জামায়াতের লোকজনকে নিয়ে চলাফেরা করছে এবং তাদের কার্যক্রম বাস্তবায়ন করছে। যে কোন বিষয়ে একক সিদ্ধান্ত গ্রহণ করছে। যাতে করে মনে হয়েয়ে আওয়ামীপন্থী শিক্ষকরা কোনঠাসা হয়ে পড়েছে। ভর্তি পরীক্ষা কিংবা নিয়োগ পরীক্ষা বিএনপি-জামায়াতের শিক্ষক দ্বারাই হয়েছে। যাতে করে এই অনিয়মের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ হিসেবে আমরা পদত্যাগ করেছি। একই কথা বলেন, ছাত্র পরামর্শ ও নির্দেশনা বিভাগের সহকারী পরিচালক সাইফুল ইসলাম। তিনি বলেন, বিভিন্নভাবে পক্ষপাতদুষ্ট কর্মকান্ড করছে প্রশাসন। এমন কারণ দেখিয়ে আমি পদত্যাগপত্র জমা দিয়েছি।

এ ব্যাপারে বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিষ্ট্রার প্রফেসর ডা. ফজলুল হক বলেন, পদত্যাগকারীদের স্বার্থ হাসিল না হওয়ায় তারা পদত্যাগপত্র জমা দিয়েছেন। শীঘ্রই তাদের পদত্যাগপত্র কার্যকর করা হবে। তিনি বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের সব কাজই সুষ্ঠুভাবে হচ্ছে। চলমান বিভিন্ন বিষয়ে সংকট নিয়েও প্রশাসনে আলোচনা হয়েছে বলে জানান তিনি।

You can share this post on
Facebook

0 মন্তব্য

মন্তব্য করতে লগইন করুন অথবা নিবন্ধন করুন ।