সফলতা ব্যর্থতার গল্প শুনিয়ে বিদায় নিলেন ডিএমপি কমিশনার

news-details
জাতীয়

আমাদের প্রতিবেদক

ঢাকা মেট্রোপিলিটন পুলিশের (ডিএমপি) কমিশনার হিসেবে দীর্ঘ সাড়ে ৪ বছর ও ৩২ বছরের কর্ম জীবনের ইতি টানলেন সদ্য বিদায়ী ডিএমপি কমিশনার আছাদুজ্জামান মিয়া।

বৃহস্পতিবার ডিএমপি মিডিয়া সেন্টারে শেষ কর্মদিবসে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে শোনালেন নিজের কর্মজীবনের সফলতা ব্যর্থতার কথা।

কমিশনার বলেন, ‘গত চার বছর সাত মাসের বেশি সময় আমি টিম ডিএমপির ৩৪ হাজার সদস্যকে এক ছাতার নিচে রেখে আইন-শৃঙ্খলা নিয়ন্ত্রণে কাজ করেছি। সফলতা ব্যর্থতা মিলেই ছিল আমার কর্মজীবন।’ কমিশনার হিসেবে আমি শতভাগ সফল হয়েছি, তা বলবো না। তবে অনেক পরিবর্তন এনেছি।’

তিনি বলেন, ‘আমার সবচেয়ে বড় সফলতা জঙ্গি দমন বলে আমি মনে করি। দেশে-বিদেশে বাংলাদেশ এখন জঙ্গি দমনের রোলমডেল।

নিজের সফলতার কথা উল্লেখ করে আরও বলেন,  'আমাদের অন্য আরেকটি সফলতা হচ্ছে ভাড়াটিয়াদের তথ্য সংগ্রহ। আমরা একটি সফটওয়্যার ডাটাবেইজে করতে সক্ষম হয়েছি। আমাদের কাছে এখন রাজধানীর ৭২ লাখ ভাড়াটিয়াদের তথ্য রয়েছে। কোনো সন্ত্রাসী ঢাকা শহরে পরিচয় গোপন করে লুকিয়ে থেকে কোনো অপরাধ করতে পারছে না। টেকসই উন্নয়নে এটি একটি অনন্য দৃষ্টান্ত।'

ব্যর্থতার কথা উল্লেখ করে তিনি বলেন, 'ব্যর্থতার কথা যদি বলি তাহলে বলব জনগণের যে প্রত্যাশা ও প্রাপ্তির ব্যবধান সেটা আমরা কিছু কমিয়ে এনেছি। কিন্তু এখানে আমরা শতভাগ সফল হয়নি। থানায় মানুষ যে ধরনের সেবা পায় সেটি কাঙ্ক্ষিত লক্ষ্যে আমরা পৌঁছাতে পারেনি। কিন্তু আমরা উন্নত করেছি, তবে এখানে আমাদের আরও কাজ করার আছে।'

তিনি বলেন, 'দ্বিতীয় আরেকটি ব্যর্থতার কথা বলব, সেটি হল ঢাকা শহরকে যানজটমুক্ত করতে পারিনি আমরা। এর দায়ভার শুধু আমাদের একার নয়। রাস্তা তৈরি, সিগন্যাল বাতি, পানি নিষ্কাশন এগুলো আরও বেশ কয়েকটি সংস্থার কাজ। তবে সবচেয়ে বড় সমস্যা, আমাদের দেশের মানুষের আইন না মানার প্রবণতা। উল্টো পথে যাওয়া সিগন্যাল ভায়োলেশন করা। এসব কারণে আমরা শতভাগ সফল হতে পারিনি, এখানে আমাদের ব্যর্থতা রয়েছে।'

এসময় ২০১৮ সালের নির্বাচনে পুলিশকে রাজনৈতিক উদ্দেশে ব্যবহার করা হয়েছে সাংবাদিকের এমন প্রশ্নের জবাবে  ডিএমপি কমিশনার বলেন, ‘বাংলাদেশ পুলিশ প্রজাতন্ত্রের কর্মচারী। তারা সংবিধান অনুযায়ী দায়িত্ব পালন করে। ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ কখনও রাজনৈতিক উদ্দেশ্যে কোনো কাজ করেনি। এসব কথা বিভ্রান্তিমূলক। ঢাকায় একসময় এমন পরিস্থিতি হয়েছে কেউ যানবাহনে বোমা ছুড়েছে, কেউ আগুন দিয়েছে, কেউ ভাঙচুর চালিয়েছে। ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ সবসময় মানুষের জনগণের জানমাল রক্ষায় কাজ করেছে, জড়িতদের গ্রেফতার করেছে। এই কাজকে যদি কেউ রাজনৈতিক উদ্দেশ্যে ব্যবহার করার কথা বলে, তাহলে এটা মিথ্যা ব্লেম দেয়া হবে।’

সংবাদ সম্মেলনে পুলিশ সদস্যদের উদ্দেশ্যে আছাদুজ্জামান মিয়া বলেন, আপনাদের উপলব্ধি করতে হবে আপনারা জনগণের বন্ধু। জনগণের টাকায় আপনারা বেতন পান। ক্ষমতার দম্ভ নয়, লাঠি ঘুরিয়ে নয়, জনতার আস্থার প্রতীক হওয়ার চেষ্টা করুন।

সংবাদ সম্মেলনের শেষে তিনি বলেন, আজ আমার শেষ কার্যদিবস। আমি এই পদ এবং বিশেষ করে এই পবিত্র পোশাককে খুব মিস করব। দায়িত্বে থাকা অবস্থায় আমি আমার পরিবার বন্ধু বান্ধবসহ কাউকেই কোনো সময় দিতে পারিনি। ১০ মিনিটের জন্য কারও সঙ্গে কোনো আড্ডাও দিতে পারিনি। অবসরের পর এখন তাদের সময় দেব।

You can share this post on
Facebook

0 মন্তব্য

মন্তব্য করতে লগইন করুন অথবা নিবন্ধন করুন ।