ব্রেকিং নিউজ

তিন জেলায় ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত ৩

news-details
জাতীয়

আমাদের ডেস্ক

চট্টগ্রাম, গাজীপুর ও কুমিল্লায় ‘বন্দুকযুদ্ধে’ তিনজন নিহত হয়েছেন। বুধবার রাতে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব) ও ডিবি পুলিশের সঙ্গে এসব বন্দুকযুদ্ধের ঘটনা ঘটে। 

চট্টগ্রামের ফটিকছড়িতে র‌্যাবের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ এক ব্যক্তি নিহত হয়েছেন। নিহতের বয়স আনুমানিক ৪০ বছর, তার পরিচয় জানাতে পারেনি র‌্যাব।

বুধবার রাতে ফটিকছড়ি উপজেলার ভুজপুর থানার কোটাবাড়িয়া গ্রামের শিকদার পাড়ায় গুলি বিনিময়ের ওই ঘটনা ঘটে।

র‌্যাব-৭ এর সহকারী পরিচালক এএসপি মাশকুর রহমান জানান, ফটিকছড়ি উপজেলায় ‘অস্ত্র বেচাকেনার’ খবর পেয়ে র‌্যাবের একটি টহল দল সেদিকে যায়। এ সময় রাস্তার পাশ থেকে সন্ত্রাসীরা টহল দলের গাড়ির দিকে গুলি করে। আত্মরক্ষার্থে র‌্যাবের সদস্যরাও পাল্টা গুলি চালায়। দুইপক্ষের গুরি বিনিমযের পর সন্ত্রাসীরা পালিয়ে যায়।

মাশকুর জানান, এরপর ঘটনাস্থলে তল্লাশি চালিয়ে একজনের মরদেহ উদ্ধারের পাশাপাশি একটি একে-২২ রাইফেল এবং ৬৩ রাউন্ড গুলি পাওয়া যায়। 

এদিকে গাজীপুর মহানগরীর সালনায় র‌্যাবের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ সুজন মিয়া (৪০) নামে এক ব্যক্তি নিহত হয়েছেন। 

র‌্যাবের, নিহত সুজন অস্ত্র ও মাদক ব্যবসায়ী। সুজনের বিরুদ্ধে বিভিন্ন থানায় ১৩টি মামলা রয়েছে। এগুলোর মধ্যে ১১টি মাদক, একটি অস্ত্র ও অপরটি হত্যা মামলা।

বুধবার রাত ২টার দিকে গাজীপুর সিটি করপোরেশনের সালনার মোল্লাপাড়া এলাকায় এ বন্দুকযুদ্ধের ঘটনা ঘটে। 

সুজন টঙ্গীর আরিচপুরের চাঁন মিয়ার ছেলে।

র‌্যাব-১ এর গাজীপুরের পোড়াবাড়ি ক্যাম্পের ইনচার্জ আব্দুল্লাহ আল মামুন জানান, র‌্যাব-১ এর একটি টহল দল গোপন সংবাদের ভিত্তিতে জানতে পারে, মোল্লাপাড়া এলাকায় কয়েকজন অস্ত্র ও মাদক ব্যবসায়ী অবস্থান করছে। রাত ১টা ৫০ মিনিটের দিকে ওই টহল দল সেখানে অভিযানে যায়। র‌্যাব সদস্যদের উপস্থিতি টের পেয়ে অস্ত্র ও মাদক ব্যবসায়ীরা র‌্যাবকে লক্ষ্য করে গুলি ছোড়ে। এ সময় র‌্যাব সদস্যরাও পাল্টা গুলি ছুড়লে সুজন গুলিবিদ্ধ হন এবং অন্যরা পালিয়ে যান। পরে সুজনকে উদ্ধার করে গাজীপুরের শহীদ তাজউদ্দীন আহমদ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

মামুন আরও বলেন, ঘটনাস্থল থেকে দুইটি শটগান, দুইটি ওয়ান শুটারগান, ১হাজার ২শ’ পিস ইয়াবা ও ৯ রাউন্ড কার্তুজ উদ্ধার করা হয়েছে। বন্দুকযুদ্ধের সময় র‌্যাবের এক সদস্যও আহত হয়েছেন। সুজনের মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য শহীদ তাজউদ্দীন আহমদ মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। 

কুমিল্লায় ডিবি পুলিশের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ রাসেল নামে এক ব্যক্তি নিহত হয়েছেন। পুলিশের দাবি, তিনি তালিকাভুক্ত শীর্ষ মাদক ব্যবসায়ী ছিলেন। এ সময় পুলিশের দুই সদস্য আহত হয়েছেন।

বুধবার রাতে জেলার সদর উপজেলার গোমতী নদীর প্রতিরক্ষা বাঁধ সংলগ্ন শ্রীপুর এলাকায় এ বন্দুকযুদ্ধের ঘটনা ঘটে।

রাসেল সদর উপজেলার পাঁচথুবী ইউনিয়নের দক্ষিণ বাগবের গ্রামের হারু মিয়ার ছেলে। 

জেলা ডিবি পুলিশের ওসি মো. মাঈন উদ্দিন খান জানান, শ্রীপুর এলাকায় কয়েকজন মাদক ব্যবসায়ী মাদক ভাগাভাগি করছে এমন খবর পেয়ে রাত দেড়টার দিকে ঘটনাস্থলে যায় জেলা ডিবি পুলিশ। পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে মাদক ব্যবসায়ীরা পুলিশের উপর গুলি চালায়। এ সময়ে পুলিশও গুলি ছোড়ে। এসময় মাদক ব্যবসায়ী রাসেল গুলিবিদ্ধ হন। তাকে উদ্ধার করে কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়ার পর কর্ত্যবরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন। 

মাঈন উদ্দিন জানান, নিহত রাসেল পুলিশের তালিকাভুক্ত মাদক ব্যবসায়ী। তার বিরুদ্ধে কোতোয়ালী থানায় ১০টি মামলা রয়েছে। ঘটনাস্থল থেকে একটি পাইপগান, একটি রামদা ও সাড়ে ৫ হাজার পিস ইয়াবা উদ্ধার করা হয়েছে।

You can share this post on
Facebook

0 মন্তব্য

মন্তব্য করতে লগইন করুন অথবা নিবন্ধন করুন ।