বকসী বাজার খেলার মাঠ ফিরে পেতে পুরান ঢাকাবাসীর মানববন্ধন

news-details
জাতীয়

।। নিজস্ব প্রতিবেদক ।। 

রাজধানীর পুরান ঢাকার বকসীবাজার এলাকার আলিয়া মাদ্রাসার ঐতিহ্যবাহী খেলার মাঠটি দীর্ঘদিন ধরে ব্যবহার করতে পারছেন না এলাকাবাসী। তাই মাঠটি যেন অচিরেই ব্যবহারের জন্য উন্মুক্ত করে দেয়া হয় প্রধানমন্ত্রী ও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর প্রতি দাবি জানিয়ে মানববন্ধন করেছে মাদ্রাসা ও আশপাশের বিভিন্ন শিক্ষা-প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থী এবং এলাকাবাসী।

আজ রবিবার (৭ এপ্রিল)  দুপুর বারোটার দিকে বকসী বাজার মাঠের পাশের মূল সড়কে অবস্থা নিয়ে মানববন্ধন করেছে মাদ্রাসা, স্কুল-কলেজ ও আশপাশের বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থী এবং এলাকাবাসীরা।

এসময় 'এই মাঠে কারো যেন কু-দৃষ্টি না পড়ে, বিকল্প ভাবুন-মাঠে ভবন গড়ার পরিকল্পনা ছাড়ুন, হৃদয় দিয়ে আমাদের আকুতি শুনুন, মাঠ ছোট করে আমাদের সুস্থ মানসিক বিকাশের অন্তরায় সৃষ্টি করবেন না সহ নানা স্লোগানের লেখার প্ল্যাকার্ড নিয়ে প্রায় ঘন্টাব্যাপী সড়কে অবস্থান নিয়ে মানববন্ধন করেন তারা।

এসময় তারা প্রধানমন্ত্রী ও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর প্রতি দাবি জানিয়ে বলেন, আমাদের মাঠ আমাদেরকে ব্যবহারের উপযোগী করে দিতে হবে। পুরো এলাকায় এ মাঠ ছাড়া আর কোনো মাঠ নেই। আমরা আর কোথাও খেলাধুলা করতে পারি না। তাই আমাদের সকলের দাবি এ মাঠটি যেন কোনো বেদখলের কবলে পড়ে হারিয়ে না যায় সেজন্য প্রধানমন্ত্রী এবং স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর প্রতি আমাদের জোর দাবি জানাচ্ছি। অচিরেই যেন আমাদের মাঠ আমাদের কে ফিরিয়ে দেয়।

মানববন্ধনে আলিয়া মাদ্রাসা ছাত্রলীগের সভাপতি মোঃ শাহাদাত হোসেন বলেন, ২০০৯ সালে বিডিআর বিদ্রোহের ঘটনার বিচারের জন্য আমাদের মাদ্রাসার মাঠটির একাংশ দখল করে ভবন করা হয়। তৎকালীন আইনমন্ত্রী কামরুল ইসলাম বলেছিলেন বিচার শেষে ভবন অপসারণ করে মাঠ ফিরিয়ে দেয়া হবে। কিন্তু ওই বিচার শেষে মাঠ ফিরিয়ে দেয়া হয়নি। উল্টো মাঠ ফিরিয়ে না দিয়ে এখন মাঠে একটা মসজিদ ও প্রাথমিক বিদ্যালয় স্থানান্তরের চেষ্টা চালাচ্ছে কারা অধিদপ্তর। আমরা এর প্রতিবাদ করায় তাদের কাজ এখন বন্ধ আছে। কিন্তু তারা চেষ্টা চালাচ্ছে মাঠ দখলের। তাই আমরা এটার প্রতিবাদে মানববন্ধন করছি। যদি আমাদের দাবি না মানা হয় তাহলে আরও বড় আন্দোলন কর্মসূচী পালন করবো আমরা।

মানববন্ধনে স্থানীয় ডিএসসিসির ২৭ নাম্বার ওয়ার্ড কাউন্সিলর ওমর বিন আব্দুল আজিজ বলেন, এ মাঠটি মাদ্রাসার ছিল। কিন্তু এটি এখন দাবি করছে কারা অধিদপ্তর। তাদের দাবি হাইকোর্ট একটা রায় দিয়ে এমাঠ তাদের। কিন্তু এলাকাবাসীর তো আর কোনো খেলাধুলার মাঠ নেই। তাই প্রধানমন্ত্রী চাইলেই এ সমস্যা সমাধান হয়ে যেতো আর এলাকাবাসীও মাঠটা ফিরে পেতো। 

উল্লেখ্য, খেলার মাঠটি গত এক বছরেরও বেশি সময় ধরে বেগম খালেদা জিয়ার মামলার বিচার কার্যে ব্যবহার করা হয়। তাই মাঠটি এখন অধিকাংশ সময় ব্যবহারে নিষেধাজ্ঞা থাকে।

You can share this post on
Facebook

0 মন্তব্য

মন্তব্য করতে লগইন করুন অথবা নিবন্ধন করুন ।