ব্রেকিং নিউজ

সংশ্লিষ্ট পুলিশ-র‌্যাবকেও অ্যারেস্ট করা হোক : ওমর ফারুক চৌধুরী

news-details
রাজনীতি

আমাদের প্রতিবেদক

যুবলীগ চেয়ারম্যান মোহাম্মদ ওমর ফারুক চৌধুরী বলেছেন, যুবলীগ নিয়ে গভীর ষড়যন্ত্র চলছে। রাজনীতি প্রক্রিয়াকে ধ্বংস করে বিরাজনৈতিক করণের জন্যই এ ষড়যন্ত্র।

গতকাল মিরপুরে ওয়ার্ড যুবলীগের সম্মেলন শেষে সাংবাদিকদের তিনি আরও বলেন, কেউ অপরাধ করলে শাস্তি হবেই। তবে প্রশ্ন হলো কেন এতদিন পর একজনকে গ্রেফতার করা হলো? আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী এতদিন কোথায় ছিলেন? অতীতে সব জানতেন। আইনশৃঙ্খলা বাহিনী আমার দিকে আঙ্গুল তুলছেন। এতদিন কেন ব্যবস্থা নেননি? এখন বলছেন, ৬০টি ক্যাসিনো ছিল। তাহলে কি এতদিন আইনশৃঙ্খলা বাহিনী আঙ্গুল চুষছিলেন? যে ৬০ জায়গায় ক্যাসিনো সেই ৬০ থানাকে এরেস্ট করা হোক। সে সময় ক্যাসিনো চলল, আর সেই এলাকার পুলিশ কী করছে? র‌্যাব কী করছে? তাদের এরেস্ট করা হোক। আমাকে এরেস্ট করবেন করেন? রাজনীতি করি। আমাকে এরেস্ট করবেন, আর আমি বসে থাকব? এতদিন ক্যাসিনো চলত, আপনারা জানতেন না?

যুবলীগ চেয়ারম্যান বলেন, সাংবাদিকরা লিখলেন ৫০০ জায়গায় ক্যাসিনো চলে, সাংবাদিককে বলতে হবে কোথায় কোথায় চলে। কেউ অপরাধ করলে ব্যবস্থা নেওয়া হয় জানিয়ে তিনি বলেন, যত বড় নেতাই হোক না, কেউ যদি অভিযোগ করে, তদন্ত করি। উভয়পক্ষের কথা শুনি। আমরা কেন্দ্রের প্রেসিডিয়াম থেকে শুরু করে কেন্দ্রীয় ও জেলা নেতাদের বিরুদ্ধে সংগঠনের ট্রাইব্যুনালে ব্যবস্থা নিয়েছি। এটা নতুন কোনো বিষয় নয়। কাজ করতে গেলে ত্রুটি থাকবেই।

তিনি বলেন, যে সংগঠনটি সবচেয়ে সংগঠিত (ঢাকা মহানগর দক্ষিণ যুবলীগ), আপনি নিশ্চয় রাষ্ট্রনায়ক শেখ হাসিনার জনসভা দেখেছেন? শৃঙ্খলা কাকে বলে? এ সংগঠনটি তা দেখিয়েছে। যেটি আমাদের ঘোষণায় ঢাকা মহানগর দক্ষিণ যুবলীগ শ্রেষ্ঠ সংগঠন।

ওমর ফারুক চৌধুরী বলেন, গোয়েন্দারা এখন যদি এতই তৎপর, পত্রিকার সাংবাদিকরা যদি এতই তথ্য পান তাহলে কেন এতদিন বলেননি? কেন লেখেননি? ও আপনি অতীতে জানতেন? বিষয়টি লুকিয়ে রেখেছিলেন? যদি ব্যবস্থা সেদিন থেকেও নিতেন, তাহলে এতদূর পর্যন্ত আসত না। তিনি বলেন, আমি আমার ব্যর্থতা অস্বীকার করছি না, আমি আমার প্রতিটি কর্মে হাততালি পাব তা বলছি না। দুষ্কর্মের জন্য নিগৃত হবো না- এটা হতে পারে না। হঠাৎ করে এমন অভিযোগ কেন? দলকে নিষ্ক্রিয় করতে আসছেন? বিরাজনীতিকরণের কাজ করছেন? সংগঠনকে নিষ্ক্রিয় করার ষড়যন্ত্র করতে আসছেন? যুবলীগ চেয়ারম্যান বলেন, শনিবারের মিটিংয়ের খবর কোনো পত্রিকায় দিতে পারল না। অনলাইন পত্রিকায় এলো। রবিবার থেকে পত্রিকায় আসা শুরু হলো। দক্ষিণের যে দুজনের নাম বলা হয়েছে, তাদের বিরুদ্ধে আমরা ব্যবস্থা নিতে শুরু করেছি। তাদের সংগঠনের ট্রাইব্যুনালে ডেকেছি। তাদের জিজ্ঞাসাবাদ করব। অপরাধ সাংগঠনিক হলে ব্যবস্থা নেব। ফৌজদারি অপরাধ হলে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর হাতে তুলে দেব।

অস্বস্তি বোধ করছেন কিনা? জবাবে তিনি বলেন, অস্বস্তিবোধ কেন করব? যে শ্রেষ্ঠ সংগঠন ছিল সেটা নিয়েই তো কথাবার্তা হচ্ছে। যারা কাজ করে তাদের নিয়ে কথা হয়। ঢাকা মহানগর দক্ষিণ যুবলীগ সবচেয়ে সফল সংগঠন। শ্রেষ্ঠ সংগঠন।


 

You can share this post on
Facebook

0 মন্তব্য

মন্তব্য করতে লগইন করুন অথবা নিবন্ধন করুন ।