ব্রেকিং নিউজ

‘কঠিন’ ফিটনেস পরীক্ষা দিয়েই খেলতে হবে এনসিএল

news-details
খেলাধুলা

স্পোর্টস রিপোর্টার

ক্রিকেটারদের ফিটনেস নিয়ে দারুণভাবে নড়েচড়ে বসেছে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি)। কোনোভাবেই ফিটনেস নিয়ে তারা ছাড় দিতে রাজি নয়। যে কারণে ঘরোয়া প্রথম শ্রেণির আসর জাতীয় ক্রিকেট লীগে (এনসিএল) বিপ টেস্টে ১১ পয়েন্ট না পেলে অংশ নিতে পারবেন না ক্রিকেটাররা। গতকাল টুর্নামেন্ট কমিটির সভা শেষে বিসিবির সিইও নিজামুদ্দিন চৌধুরী সুজন বিষয়টি আরো একবার নিশ্চিত করেন। তার মানে স্পষ্ট মাঠের লড়াইয়ের আগে বড় চ্যালেঞ্জেই পড়তে যাচ্ছেন ক্রিকেটাররা। বিশেষ করে ৩০ থেকে ৩৫ বছর বয়সী ক্রিকেটারদের জন্য বিপ টেস্টের নির্ধারিত লেভেল তোলা বেশ কঠিন হবে বলে আগেই জানিয়েছেন তারা। এ বিষয়ে সিইও বলেন, ‘আমরা বিপ টেস্টে একটি মাত্রা নির্ধারণ করে দিয়েছি। হ্যা, ১১ পয়েন্ট পেতে হবে।

তবে যে সিলেকশন কমিটি করে দেয়া হয়েছে তারা যদি মনে করেন কোনো কোনো ক্ষেত্রে বিবেচনা করবেন সেটি তারা করতে পারেন।’ আজ নিজ নিজ বিভাগে দলগুলো ক্রিকেটারদের বিপ টেস্ট দেবে। এরপরই তারা এনসিএল খেলার অনুমতি পাবেন যদি বিপ টেস্ট পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়। এরই মধ্যে বেশ কয়েকজন সিনিয়র ক্রিকেটার বেশ প্রতিক্রিয়াও জানিয়েছেন। বিশেষ করে তাদের দাবি ফিটনেসের সঙ্গে সঙ্গে অভিজ্ঞতার মূল্যায়ন করা হোক।

এবারের এনসিএল আসর শুরু হবে আগামী ১০ই অক্টোবর থেকে। ৮ তারিখ শুরু হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু দেশে টানা বৃষ্টির কথা বিবেচনা করেই কয়েকটি দলের দাবির মুখে দুদিন পিছানো হয়েছে। সেই সঙ্গে এনসিএলের আসরকে আরো গুরুত্বপূর্র্ণ করে তুলতে বেশ কয়েকটি সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। এর মধ্যে অন্যতম জাতীয় দলের ক্রিকেটারদের অংশগ্রহণ। এ বিষয়ে সিইও নিজামুদ্দিন চৌধুরী বলেন, ‘এবারের জাতীয় ক্রিকেট লীগ আকর্ষণীয় করে তুলতে বেশ কিছু উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। এর মধ্যে অন্যতম হল জাতীয় দলের ক্রিকেটারদের অংশগ্রহণ নিশ্চিত করা। আমরা জানি আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ব্যস্ততা থাকার কারণে তাদের তেমন একটা খেলার সুযোগ হয় না। তবে আমাদের এবার চেষ্টা থাকবে জাতীয় দলের ক্রিকেটাররা যেন সুযোগ থাকলে অবশ্যই অংশ নেয়। এতে এনসিএলের আকর্ষণ বাড়বে।’ এবার মোট চারটি ভেন্যুতে খেলা হবে । সভা শেষে সিইও জানিয়েছেন মিরপুর শেরেবাংলা, ফতুল্লা খান সাহেব ওসমান আলী, খুলনা শেখ আবু নাসের ও রাজশাহী স্টেডিয়ামে ম্যাচগুলো হবে। আগের বারের তুলনায় ম্যাচ ফি বাড়ছে বলেও তিনি নিশ্চিত করেন।

ক্রিকেটারদের ভালোর জন্যই এ সিদ্ধান্ত- হাবিবুল বাশার
সভা শেষে জাতীয় দলের নির্বাচক হাবিবুল বাশার সুমন বলেন, ‘এখানে হৈ চৈয়ের কিছু নেই। আমরা একটা কালচার পরিবর্তন করতে চাচ্ছি, একটা বেঞ্চমার্ক অনুসরণ করতে চাচ্ছি। এটা শুধু আমরা না, সবাই অনুসরণ করে থাকে। গতবার ৯ ছিল, এবার ১১ করেছি। আমার মনে হয় যারা পেশাদার ক্রিকেটার ওদের ফিটনেস ঠিক রাখা উচিত। আমি এখানে বয়সের কথা বলবো না, তবে যারা নিয়মিত পারফর্মার তারা যদি পার না করতে পারে তাহলে আমরা দেখবো। এখানে কোনো বেঞ্চমার্ক রাখবো না। সর্বনিম্ন স্ট্যান্ডার্ড আপনাকে রাখতে হবে। এটা ১০.৫ হতে পারে, ১০ হতে পারে বা ৯ হতে পারে। এটা আমরা বলবো না। পুরোপুরি আমাদের বিবেচনা। আমাদের কিছুটা কালচার পরিবর্তন করতে হবে। ওদের কথা অনুযায়ী হবে না। এখানে দাবি দাওয়ার কিছু নেই। যা আমরা করছি ওদের ভালোর জন্য। এটা হলে ক্রিকেটারদেরই ভালো। আমি মনে করি ফিট প্লেয়ারদের পারফরমেন্স ভালো থাকে।’
তবে তিনি জানিয়েছেন ম্যাচ ফিটনেস ও বিপ টেস্ট মধ্যে পার্থক্য থাকার কথাও তিনি বলেন, ‘ম্যাচ ফিটনেস আর বিপ টেস্টের মধ্যে পার্থক্য অবশ্যই আছে। তবে আপনি যদি বিপ টেস্টে ফিট না থাকেন তাহলে আসলে ১-২ ম্যাচ পর হলেও আপনার ফিটনেস কমে যাবে।’

টুর্নামেন্ট কমিটির গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত

* ১০ই অক্টোবর শুরু হবে জাতীয় ক্রিকেট লীগ (এনসিএল)
* জাতীয় দলের ক্রিকেটারদের খেলতে হবে অন্তত দুটি রাউন্ড
* চারটি ভেন্যুতে ম্যাচগুলো হবে
* ফিটনেস পরীক্ষায় পাস করতে হবে ক্রিকেটারদের

You can share this post on
Facebook

0 মন্তব্য

মন্তব্য করতে লগইন করুন অথবা নিবন্ধন করুন ।