ব্রেকিং নিউজ
  1. রাজধানীর বনানীর রেইনট্রি হোটেলে নারী নির্যাতন মামলার আসামি সাফাত আহমেদের জামিন নামঞ্জুর, কারাগারে প্রেরণ
  2. ৪ ঘণ্টার চেষ্টায় সোহরাওয়ার্দী মেডিকেলের আগুন নিয়ন্ত্রণে, ১২শ রোগীকে অন্যত্র স্থানান্তর
  3. বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় হজ প্যাকেজ ঘোষণা; কোরবানি ছাড়া খরচ ৩ লাখ ৪৫ হাজার ৮০০ টাকা; হজে যাবেন ১ লাখ ২৭ হাজার ১৯৮ জন : হাব
  4. মুক্তিযুদ্ধে ভূমিকার জন্য জামায়াত ক্ষমা চাইলেও যুদ্ধাপরাধীদের বিচার কাজ বন্ধ হবে না : ওবায়দুল কাদের
  5. ২১ মে থেকে দেশের সব টেলিভিশন চ্যানেল বঙ্গবন্ধু-১ স্যাটেলাইট ব্যবহার করবে : অ্যাটকো
  6. রাজধানী ও যশোরে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ ২ মাদক ব্যবসায়ী নিহত
  7. আইএসে যাওয়া শামীমার নাগরিকত্ব কেড়ে নিচ্ছে ব্রিটেন
  8. এসএসসির ফল পরিবর্তনের ‘নিশ্চয়তা’য় ৪ প্রতারক আটক
  9. শপথ নিলেন সংরক্ষিত নারী আসনের ৪৯ সদস্য
  10. মাল‌য়ে‌শিয়া‌য় অগ্নিকাণ্ডে বাংলাদে‌শিসহ নিহত ৬
  11. চলে গেলেন সঙ্গীতশিল্পী প্রতীক চৌধুরী

বরিশালের অধিকাংশ হাসপাতালে দালালের দৌরাত্ম্যে সর্বস্ব হারাচ্ছে রোগী

news-details
দেশজুড়ে

।। বরিশাল প্রতিনিধি ।। 

“ও ডাক্তার ও ডাক্তার। তুমি কতো শত পাস করে এসেছো বিলেত ঘুরে মানুষের যন্ত্রণা ভোলাতে। তোমার এমবিবিএস নামা এফআরসিএস বোধ হয় এ টু জেট ডিগ্রী ঝোলাতে। ডাক্তার মানে সেতো, মানুষ নয় আমাদের চোখে সেতো ভগবান, কসাই আর ডাক্তার একিতো নয় কিন্তু দুটোই আজ প্রোফেশন, কসাই জবাই করে প্রকাশ্য দিবালোকে, তোমার আছে ক্লিনিক আর চেম্বার”।

পশ্চিমবঙ্গের জনপ্রিয় কন্ঠশিল্পী নচিকেতার তুমুল আলোচিত এই গানটির কথাগুলোর সাথে বরিশালের বাস্তবতা পুরোপুরি মিলে যাচ্ছে। এখানে শুধু ডাক্তারের হাতে নয়, রোগীরা জবাই হচ্ছেন কয়েকটি স্তরে। সেবার নূন্যতম বালাই না থাকলেও রোগীদের গুনতে হচ্ছে কাড়ি-কাড়ি টাকা। বিশেষ করে ডায়াগনস্টিক সেন্টারগুলোতে সর্বস্ব হারিয়েও মিলছে না কাঙ্খিত সেবা।

নামসর্বস্ব ডায়াগনস্টিক সেন্টারগুলোতে রোগী টানতে ভাড়ায় খাটানো হচ্ছে নারী ও পুরুষ দালাল। বিশেষ করে দালাল চক্রটি অবস্থান নিয়ে থাকেন শহরের প্রবেশদ্বার রূপাতলী বাসস্ট্যান্ড, নথুল্লাবাদ ও লঞ্চ টার্মিনাল এলাকাসহ জেলার বাহিরের প্রতিটি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের সামনে। তাদের টার্গেট থাকে গ্রাম-গঞ্জ থেকে চিকিৎসা নিতে আসা সহজ-সরল মানুষকে নানাভাবে প্রলোভন দেখিয়ে নির্ধারিত বা নির্দিষ্ট ডায়াগনস্টিকে নিয়ে যাওয়া এবং সেখানকার কথিত ডাক্তারকে দেখিয়ে কয়েক হাজার টাকার পরীক্ষা-নিরীক্ষা সম্পাদন করা। এই টার্গেট পূরণ করা গেলেই শতকরা ৩০ শতাংশ টাকা পেয়ে যায় একেকজন দালাল। যে কারনে ডায়াগনস্টিকের দালালরা হয়ে ওঠে বেপরোয়া। রোগী টানতে গিয়ে ঘটনাচক্রে দালালদের মধ্যে হাতাহাতি থেকে মারামারির ঘটনাও ঘটছে।

গত ২ ফেব্রুয়ারী সন্ধ্যায় কেয়া বেগম নামের এক গৃহবধূ সদররোডস্থ ল্যাবএইড ডায়ানগস্টিকে ডাক্তার দেখাতে আসলে তাকে এক দালাল প্রলোভন দেখিয়ে একজন নাম সর্বস্ব হৃদরোগ চিকিৎসকের কাছে নিয়ে যায়। সেখানে ডাক্তার ফি বাবদ সাতশত টাকা দাবি করলে ওই নারী ছয়শ’ টাকা দিয়ে আসেন। পরবর্তীতে সেই দালাল নারীকে পরীক্ষা-নিরীক্ষার নামে নিয়ে যায় নগরীর আগরপুর রোডের দি মুন মেডিকেল সার্ভিসেস নামক ডায়াগনস্টিক সেন্টারে। সেখানে পরীক্ষা-নিরীক্ষার নামে ওই নারীর কাছ থেকে ২৪শ’ টাকা রেখে রিপোর্ট দিয়ে তাকে নিয়ে যাওয়া হয় জর্ডন রোডের একটি ভবনের পরিত্যক্ত কক্ষে। সেখানে ওই নারীকে রেখে পালিয়ে যায় দালাল। কিছুক্ষণ অপেক্ষা করে কাউকে না পেয়ে ওই নারী কান্নাকাটি শুরু করেন। এমন অবস্থায় নারীর কান্নাকাটিতে স্থানীয়রা জড়ো হওয়ার খবর পাওয়া মাত্রই কতিথ সেই ডাক্তার ওই নারীকে নিয়ে যাবার জন্য তার ভাড়াটিয়া দুইজন ব্যক্তিকে ঘটনাস্থলে পাঠিয়ে দেন। বিক্ষুব্ধ জনতা তাদের নাগালে পাওয়া মাত্রই গণধোলাই দিয়ে পুলিশের কাছে সোপর্দ করেন। ফলে বলার আর অপেক্ষা থাকেনা যে বরিশালের ডায়াগনস্টিক সেন্টারগুলোর বর্তমান অবস্থা।


 

You can share this post on
Facebook

0 Comments

If you want to comment please Login. If you are not registered then please Register First