ব্রেকিং নিউজ

ঢাকা আন্তর্জাতিক বাণিজ্যমেলা :  সকালে ফাঁকা বিকেলে জমজমাট

news-details
অর্থনীতি

আমাদের প্রতিবেদক : 

বছরের প্রথম দিনে শুরু হওয়া ঢাকা আন্তর্জাতিক বাণিজ্যমেলার প্রথম দুদিন ঢিলেঢালা হলেও সাপ্তাহিক ছুটির দিন শুক্রবারে (৩ জানুয়ারি) ক্রেতা-দর্শনার্থীদের ভিড়ে জমাজমাট হয়ে উঠেছে। প্রচণ্ড শীত আর বৃষ্টি উপেক্ষা করেই নগরবাসী ছুটে গেছেন বাণিজ্য মেলায়। কেউ গেছেন ঘোরাঘুরি করতে, কেউবা পছন্দের পণ্য বাছাই করতে।

হঠাৎ করেই বৃহস্পতিবার দিনগত রাতে বৃষ্টি হওয়ায় মেলা প্রঙ্গনের কোথাও কোথাও পানি জমেছে। কিছুটা বিরূপ পরিস্থিতিতে পড়তে হয়েছে আয়োজকদের। এর ওপর সকাল থেকেই বেড়েছে শীতের দাপট। তার ওপর গুঁড়ি গুঁড়ি বৃষ্টি বাড়িয়ে দিয়েছে শীতের প্রচণ্ডতা। তবে সব প্রতিকূলতা উপেক্ষা করেই নগরবাসী ছুটির দিনে ছুটে গেছেন বাণিজ্য মেলায়।

আয়োজকরা জানাচ্ছেন, সকালে দর্শক আর ক্রেতা সমাগম কম থাকলেও বিকেল পড়তেই জমে উঠে মেলা প্রাঙ্গন। সব বয়সীদের ভিড় দেখা যায় মেলায়। তার মধ্যে নারীদের সংখ্যাই বেশি। তাদের অনেকেই বলছেন, মূলত তারা ঘুরতে এসেছেন। তবে পছন্দ হলে কিছু কিনতেও পারেন। কেউ আবার বলছেন, কে কী অফার দিচ্ছে তা জানতেই এসেছেন।

শুক্রবার (৩ জানুয়ারি) রাজধানীর আগারগাঁও বাণিজ্যমেলা প্রাঙ্গণ ঘুরে দেখা যায়, সকালে বৃষ্টি হওয়ায় মেলা প্রাঙ্গন অনেকটা ফাঁকা ছিল। তবে বিকেল গড়তেই ক্রেতা-দর্শাথীর সংখ্যা বাড়তে থাকে। আয়োজকরা বলছেন, গত দুদিন ধরে বলা যায় ফাকাই ছিল মেলা প্রাঙ্গন। ছুটির দিনে জমে উঠেছে।

বিক্রেতারা বলছেন, বাণিজ্যমেলা শুরুর কয়েকদিন বেচাকেনা তুলনামূলক কম হয়। বিশেষ করে ছুটির দিনগুলোতে লোক সমাগম বেশি হয়ে থাকে। মেলা প্রাঙ্গনে কথা হয় বেসরকারি ব্যাংকের কর্মকর্তা জহিরের সঙ্গে। তিনি ভোরের কাগজকে বলেন, আজ মূলত ঘুরতেই এসেছিলাম। পাশাপাশি পছন্দ হলে কিছু কেনাকাটা করবো। প্যাভিলিয়নগুলোতে বেশ কিছু অফার ভালো লেগেছে।

মেলা সূত্র জানায়, নিয়মানুযায়ী বছরের শুরুর দিন উদ্বোধন হওয়া এ মেলা চলবে আগামী ৩১ জানুয়ারি পর্যন্ত। প্রতিদিন সকাল ১০টা থেকে রাত সাড়ে ৯টা পর্যন্ত দর্শনার্থীদের জন্য খোলা থাকবে। এ বছর প্রাপ্ত বয়স্কদের জন্য টিকিটের দাম বাড়িয়ে ৪০ টাকা এবং অপ্রাপ্তবয়স্কদের জন্য ২০ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে। এবার মেলা প্রাঙ্গন সংশ্লিষ্ট গাড়ি পার্কিংয়ের জায়গাসহ মেলা মাঠের আয়তন প্রায় ৩২ একর।

এবারের মেলায় মোট স্টল ও প্যাভিলিয়নের সংখ্যা ৪৮৩টি। এর মধ্যে বিভিন্ন ক্যাটাগরির প্যাভিলিয়নের সংখ্যা ১১২টি, মিনি প্যাভিলিয়নের সংখ্যা ১২৮টি এবং বিভিন্ন ক্যাটাগরির স্টলের সংখ্যা ২৪৩টি।

এর মধ্যে বিদেশি প্যাভিলিয়ন ২৭টি, বিদেশি মিনি প্যাভিলিয়ন ১১টি এবং বিদেশি প্রিমিয়ার স্টলের সংখ্যা ১৭টি। এবারের মেলায় ২১টি দেশ অংশ নিয়েছে। বাংলাদেশ ছাড়া এসব দেশগুলো হচ্ছে- থাইল্যান্ড, ইরান, তুরস্ক, নেপাল, চীন, মালয়েশিয়া, যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য, ভারত, পাকিস্তান, হংকং, দক্ষিণ কোরিয়া, দক্ষিণ আফ্রিকা, জার্মানি, অস্ট্রেলিয়া, ভুটান, ব্রুনাই, দুবাই, ইতালি ও তাইওয়ান।


 

You can share this post on
Facebook

0 মন্তব্য

মন্তব্য করতে লগইন করুন অথবা নিবন্ধন করুন ।