ব্রেকিং নিউজ

কক্সবাজার ও নাটোরে 'বন্দুকযুদ্ধে' নিহত দুই

news-details
দেশজুড়ে

 কক্সবাজার ও নাটোর প্রতিনিধি  : 

কক্সবাজারের টেকনাফে এক রোহিঙ্গা 'ইয়াবা পাচারকারী' এবং নাটোরের গুরুদাসপুরের বৃদ্ধা মনোয়ারা বেগম হত্যার ভাড়াটে খুনি আবু হানিফ বেপারী 'বন্দুকযুদ্ধে' নিহত হয়েছে।

কক্সবাজারের টেকনাফে এক রোহিঙ্গা 'ইয়াবা পাচারকারী' শুক্রবার ভোরে টেকনাফ উপজেলার হ্নীলা ইউনিয়নের জাদিমোড়া নাফনদী সংলগ্ন এলাকায় বিজিবির সঙ্গে এ 'বন্দুকযুদ্ধের' ঘটনা ঘটে। বিজিবি জানায়, নিহত ব্যক্তি ইয়াবা পাচারকারী ও রোহিঙ্গা নাগরিক। সে উখিয়া উপজেলার থ্যাংখালী রোহিঙ্গা ক্যাম্পে থাকত। তবে তার নাম জানান যায়নি। এ ঘটনায় ঘটনাস্থল থেকে ১ লাখ ৩০ হাজার পিস ইয়াবা, একটি দেশি বন্দুক ও এক রাউন্ড তাজা কার্তুজ উদ্ধার করা হয়েছে।

টেকনাফের ২ বিজিবি ব্যাটালিয়ন অধিনায়ক লে. কর্নেল মো. ফয়সাল হাসান খান জানান, ভোরে দমদমিয়া বিওপি বিজিবির একটি বিশেষ টিম টেকনাফের হ্নীলা ইউনিয়নের জাদিমোড়া মসজিদের পূর্ব পাশে কেওড়া বাগানের কাছে নাফনদী এলাকায় অবস্থান নেয়। সেখান থেকে কয়েকজন লোককে বস্তা মাথায় নিয়ে হেঁটে যেতে দেখে সন্দেহ হলে তাদের চ্যালেঞ্জ করা হয়। এ সময় ইয়াবা পাচারকারীরা বিজিবিকে লক্ষ্য করে গুলি চালায়। বিজিবিও আত্মরক্ষার্থে পাল্টা গুলি চালায়। এক পর্যায়ে ইয়াবা পাচারকারীরা গুলি করতে করতে পালিয়ে যায়। পরে ওই এলাকা থেকে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় একজনকে উদ্ধার করে টেকনাফ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেওয়া হয়। সেখান থেকে চিকিৎসক প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে তাকে কক্সবাজার সদর হাসপাতালে পাঠায়। কক্সবাজার সদর হাসপাতালে নেওয়ার পর চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। নাটোর: গুরুদাসপুরের বৃদ্ধা মনোয়ারা বেগম হত্যা মামলায় আবু হানিফ বেপারীকে ঢাকা থেকে গ্রেপ্তার করা হয়। বৃহস্পতিবার রাতে তাকে নিয়ে অস্ত্র উদ্ধারে গুরুদাসপুর উপজেলার কালাকান্দ (পারগুরুদাসপুর) এলাকায় গেলে এ 'বন্দুকযুদ্ধের' ঘটনা ঘটে।

অন্যদিকে, নাটোরের গত ১৬ জানুয়ারি ভোরে গুরুদাসপুর পৌর এলাকার বাসিন্দা মনোয়ারা বেগমকে (৬২) ছুরিকাঘাতে হত্যা করে দুর্বৃত্তরা। এ ঘটনায় দায়ের করা মামলা তদন্তে নেমে তথ্য-প্রযুক্তির সহায়তায় আসামিদের সানাক্ত করা হয়। এরপর গোয়েন্দা তথ্যের ভিত্তিতে বৃহস্পতিবার সিংড়া সার্কেলের এএসপি জামিল আকতারের নেতৃত্বে গুরুদাসপুর থানার পুলিশ রাজধানীর মেরুল বাড্ডা এলাকা থেকে মনোয়ারা হত্যার ভাড়াটে খুনি আবু হানিফ বেপারীকে গ্রেপ্তার করে। বৃহস্পতিবার রাত পৌনে তিনটার দিকে আবু হানিফের দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতে তাকে সঙ্গে নিয়ে গুরুদাসপুর উপজেলার পারগুরুদাসপুর (কালাকান্দ) এলাকায় তার সহযোগীদের ধরতে অভিযান চালানো হয়। এ সময় সড়কের পাশের কলাবাগানে অবস্থানরত পলাতক আসামিরা পুলিশকে লক্ষ্য করে গুলি ছোড়ে। পুলিশও আত্মরক্ষার্থে পাল্টা গুলি চালায়। বন্দুকযুদ্ধ চলাকালে আবু হানিফ বেপারী পালানোর সময় গুলিবিদ্ধ হয়। উদ্ধার করে তাকে হাসপাতালে নেওয়া হলে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।
 

You can share this post on
Facebook

0 মন্তব্য

মন্তব্য করতে লগইন করুন অথবা নিবন্ধন করুন ।