ব্রেকিং নিউজ

মানুষ উৎসাহ-উদ্দীপনা নিয়ে ভোটাধিকার প্রয়োগ করছে  : তথ্যমন্ত্রী

news-details
রাজনীতি

নিজস্ব প্রতিবেদক :

আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক ও তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ বলেন, ঢাকার দুই সিটি করপোরেশন নির্বাচনের প্রচারণা থেকে শুরু করে এখন পর্যন্ত কিছু ঘটনা ঘটেছে সত্যি। তবে সার্বিক বিবেচনায় ঢাকা শহর পৃথিবীর বড় শহর, এখানে ৫৪ লাখ ভোটার। এই শহরে নির্বাচনী আমেজ ছিল প্রচারণার সময় থেকেই। এখন পর্যন্ত মানুষ উৎসাহ-উদ্দীপনা নিয়ে ভোটাধিকার প্রয়োগ করছে। আমি মনে করি, অতীতের যে কোনো সময়ের তুলনায় নির্বাচনী পরিবেশ ভালো। আমরা যদি কলকাতা সিটি করপোরেশনের নির্বাচনের দিকে তাকাই এবং ভারতের অন্যান্য স্থানীয় নির্বাচনের দিকে তাকাই, সেই বিচারে ঢাকার সিটি করপোরেশনের নির্বাচন অনেক সুন্দর পরিবেশে হচ্ছে।

আজ শনিবার দুপুরে আওয়ামী লীগ সভাপতির ধানমন্ডির রাজনৈতিক কার্যালয়ের বাইরে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে হাছান মাহমুদ একথা বলেন।

সকাল ৮টা থেকে ঢাকার দুই সিটি করপোরেশনে (ডিএনসিসি-ডিএসসিসি) ভোটগ্রহণ শুরু হয়েছে। চলবে বিকেল ৪টা পর্যন্ত। এরপর ফলাফল ঘোষণা করা হবে।

ভোটগ্রহণ চলাকালে মোহাম্মদপুরের একটি কেন্দ্রের বাইরে সাংবাদিক মোস্তাফিজুর রহমান সুমন আহত হওয়ার বিষয়ে এক প্রশ্নের জবাবে আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক হাছান মাহমুদ বলেন, কোনো সাংবাদিক আহত হওয়া অনভিপ্রেত-দুঃখজনক। সেটি কেন হয়েছে কীভাবে হয়েছে, নিশ্চয়ই নির্বাচন কমিশন ব্যবস্থা নেবে। আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী ব্যবস্থা নেবে। কোনো সাংবাদিক নির্বাচনী দায়িত্ব পালন করতে গিয়ে আহত হওয়া, বাধাগ্রস্ত হওয়া কোনোভাবে সমীচীন নয়, আমরা সেটা সমর্থন করি না।

নির্বাচন নিয়ে বিএনপির অভিযোগ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, প্রথম থেকেই বিএনপির প্রচেষ্টা ছিল নির্বাচনকে প্রশ্নবিদ্ধ করা। নানা ধরনের অভিযোগ নির্বাচনী প্রচারণার সময় তারা উপস্থাপন করেছিল। আজকে সকাল থেকে সেটা উপস্থাপন করছে। দুপুরে কী বলবে সেটা ঠিক করে রেখেছে। বিকেলে কী বলবে সেটাও ঠিক করে রেখেছে।

‘তাদের মূল উদ্দেশ্য কী সেটা (দলের মহাসচিব) মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর স্পষ্ট করেছেন। ফখরুল বলেছেন, আমাদের সাফল্য সেখানেই- আমরা মাঠে নামতে পেরেছি। তাহলে নির্বাচনে জয়লাভ করা কতটুকু উদ্দেশ্য? সুতরাং এখানে বিএনপি নানা অভিযোগ উপস্থাপন করবে, এগুলো গৎবাঁধা অভিযোগ। সব সময় তারা করে আসছে। নির্বাচন চলাকালীন নানা অভিযোগ করবে, বিকেলে করবে, সন্ধ্যায়ও করবে।’

ভোটকেন্দ্রে ভোটার উপস্থিতি কমের বিষয়ে এক প্রশ্নের জবাবে আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক বলেন, শীতের সকাল ৮টা, অনেক সকাল। আর একইসঙ্গে শনিবার বন্ধের দিন। বন্ধের দিনে মানুষের মাঝে একটা বন্ধের আমেজে থাকে। সেই পরিস্থিতিতে ভোটার উপস্থিতি কম ছিল। বেলা বাড়ার সাথে সাথে ভোটার উপস্থিতি বেড়েছে। এখনো ভোটের সময় বাকি রয়েছে, আমি সবাইকে অনুরোধ জানাব, যে যেখানে ইচ্ছা সেখানেই ভোট দেবেন। তারা যেন তাদের গণতান্ত্রিক অধিকার প্রয়োগ করেন, স্বতঃস্ফূর্তভাবে ভোট দিতে আসেন।

বিরোধী প্রার্থীদের পোলিং এজেন্টদের কেন্দ্র থেকে বের করে দেয়ার অভিযোগ প্রসঙ্গে হাছান মাহমুদ বলেন, ইভিএম নিজেই পোলিং এজেন্ট হিসেবে কাজ করে। সেখানে আমাদের কর্মী যতই থাক না কেন, ইভিএম মেশিনে ফিঙ্গার প্রিন্ট না মিললে কারও পক্ষে অন্যের ভোট দেয়া সম্ভব নয়। আর কেন্দ্রে বিএনপির কর্মীর অনুপস্থিতি তাদের সাংগঠনিক দুর্বলতা।

You can share this post on
Facebook

0 মন্তব্য

মন্তব্য করতে লগইন করুন অথবা নিবন্ধন করুন ।