ব্রেকিং নিউজ

এক পরিবারের তিনজন আইসোলেশনে, গৃহকর্তার নমুনা সংগ্রহ

news-details
দেশজুড়ে

কেশবপুর (যশোর) প্রতিনিধি

যশোরের কেশবপুরে একই পরিবারের তিনজন জ্বর, সর্দি-কাশিতে আক্রান্ত হয়ে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি হয়েছে। ওই পরিবারের গৃহকর্তার শরীর থেকে নমুনা সংগ্রহ করেছে ঢাকাস্থ মহাখালী স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের আইইডিসিআরের পক্ষ থেকে। আক্রান্ত তিনজনকেই স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আইসোলেশনে রাখা হয়েছে।

উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার পাঁচপোতা গ্রামের মিলন সিংহকে জ্বর, সর্দি-কাশির কারণে সোমবার দুপুরে দ্বিতীয় দফায় ভর্তি করা হয়। একই দিন জ্বরে আক্রান্ত তার ছেলে চন্দন সিংহও ভর্তি হয়। ওই পরিবারের একাধিক সদস্য জ্বর, সর্দি-কাশিতে আক্রান্ত হওয়ায় এলাকায় ভীতির সঞ্চার হয়।

মঙ্গলবার সকালে মিলন সিংহের স্ত্রী শিখা সিংহকেও ভর্তি করা হয়েছে। তাদেরকে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আইসোলেশনে রেখে চিকিৎসা করানো হচ্ছে। মঙ্গলবার সকালে ঢাকাস্থ মহাখালী স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের আইইডিসিআর এর মেডিক্যাল টেকনোলজিস্ট লিটন হালদার ওই পরিবারের গৃহকর্তা মিলন সিংহের নাক ও গলা থেকে লালা সংগ্রহ করেন। 

উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. আলমগীর হোসেন বলেন, মিলন সিংহের নাক ও গলা থেকে লালা সংগ্রহ করেছেন স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের আইইডিসিআরের মেডিক্যাল টেকনোলজিস্ট লিটন হালদার। ওই নমুনা ঢাকাস্থ মহাখালী স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের আইইডিসিআরে প্রেরণ করা হয়েছে। ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে রিপোর্ট পাওয়া যাবে।

উল্লেখ্য, মিলন সিংহকে গত রবিবার সকালে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তির পর ১৫ মিনিটের ভেতর ছাড়পত্র দিয়ে খুলনা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে স্থানাস্তর করা হয়। মিলন সিংহের ছেলে তিলক সিংহ বলেন, বাবাকে খুলনা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হলে জরুরি বিভাগের কর্তব্যরত চিকিৎসক ভর্তি না করে দূর থেকে চিকিৎসাপত্র দিয়ে বাড়িতে পাঠিয়ে দেন। এ খবর সাংবাদিকদের নিকট থেকে জানতে পেরে কেশবপুর থানার ওসি মো. জসীম উদ্দিন বাবাকে বাড়ি থেকে নিয়ে সোমবার দুপুরে দ্বিতীয় দফায় কেশবপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে দেন।


 

You can share this post on
Facebook

0 মন্তব্য

মন্তব্য করতে লগইন করুন অথবা নিবন্ধন করুন ।