নুসরাত হত্যা : হাফেজ কাদেরের জবানবন্দি

news-details
জাতীয়

।। ফেনী প্রতিনিধি ।। 

ফেনী সোনাগাজীর নুসরাত জাহান রাফি হত্যার আসামি মাদ্রাসার অধ্যক্ষের ‘ঘনিষ্ঠ’ দুই শিক্ষার্থীর ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দির পর আজ নিজের বক্তব্য দিতে ফেনীর জ্যেষ্ঠ বিচারিক হাকিমের কার্যালয়ে হাজির হয়েছেন মাদ্রাসার শিক্ষক হাফেজ আবদুল কাদের।

গতকাল বুধবার ঢাকার হোসেনী দালান এলাকা থেকে হাফেজ আবদুল কাদেরকে গ্রেপ্তার করা হয় বলে জানিয়েছিল মামলার তদন্তকারী সংস্থা পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই)।

আজ বৃহস্পতিবার দুপুরে তাঁকে ঢাকা থেকে ফেনীর আদালতে হাজির করে জবানবন্দি গ্রহণের জন্য আবেদন করা হয় বলে জানান মামলার তদন্ত কর্মকর্তা পিবিআইর পরিদর্শক মো. শাহ আলম। তিনি জানান, জ্যেষ্ঠ বিচারিক হাকিম শরাফ উদ্দিন জবানবন্দি রেকর্ড করছেন।

আবদুল কাদের সোনাগাজীর আমিরাবাদ ইউনিয়নের পূর্ব সফরপুর গ্রামের মনছুর খান পাঠানবাড়ীর আবুল কাসেমের ছেলে। তিনি সোনাগাজী ইসলামিয়া ফাজিল মাদ্রাসার হেফজ বিভাগের শিক্ষক এবং ফাজিল দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্র।

অধ্যক্ষ সিরাজ উদ দৌলার অনুগত হিসেবে মাদ্রাসার হোস্টেলে থাকতেন আবদুল কাদের। আবদুল কাদের গত ৬ এপ্রিল নুসরাতের গায়ে আগুন দেওয়ার পরদিন মালামাল নিয়ে হোস্টেল ছেড়ে বাড়ি চলে যান। কাদেরকে নিয়ে এই মামলায় মোট চারজন স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিলেন।

নুসরাত জাহান রাফিকে পুড়িয়ে হত্যার এ মামলায় এখন পর্যন্ত তিন নারীসহ মোট ১৮ জনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ ও পিবিআই।

গত ৬ এপ্রিল সকালে আলিম পরীক্ষা দিতে গেলে সোনাগাজী ইসলামিয়া সিনিয়র ফাজিল মাদ্রাসায় মুখোশ পরা চার/পাঁচজন নুসরাত জাহান রাফিকে অধ্যক্ষ সিরাজ উদ দৌলার বিরুদ্ধে করা যৌন হয়রানির মামলা ও অভিযোগ তুলে নিতে চাপ দেয়। অস্বীকৃতি জানালে তারা নুসরাতের গায়ে আগুন দিয়ে পালিয়ে যায়।

গত ১০ এপ্রিল বুধবার রাত ৯টায় ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে মারা যান অগ্নিদগ্ধ নুসরাত জাহান রাফি।

You can share this post on
Facebook

0 মন্তব্য

মন্তব্য করতে লগইন করুন অথবা নিবন্ধন করুন ।