ব্রেকিং নিউজ

ডিএসসিসি সম্পত্তি বিভাগের কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে টেন্ডার জালিয়াতির অভিযোগ

news-details
জাতীয়

আমাদের প্রতিবেদক

ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের (ডিএসসিসি) সম্পত্তি বিভাগের কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে টেন্ডার জালিয়াতির অভিযোগ করেছেন ঠিকাদার হাজী সালেহ্ মোহাম্মদ। বাবুবাজার ব্রিজের নিচে পার্কিং ইজারা দিয়ে এবং ওয়ার্ক অর্ডার না দিয়ে ফের ইজারা দিয়েছে সম্পত্তি বিভাগের কর্মকর্তারা।

সোমবার সকালে বাংলাদেশ ক্রাইম রিপোর্টার্স এসোসিয়েশনে (ক্র্যাব) সংবাদ সম্মেলনে এ অভিযোগ করেন তিনি। বিষয়টি সুরহার জন্য মেয়রের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন ভুক্তোভোগী হাজী সালেহ্ মোহাম্মদ।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে তিনি বলেন, গত ২ জানুয়ারি ডিএসসিসির কার পাকিং ইজারার বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে ৩০ জানুয়ারি আমিসহ আরো কয়েকটি প্রতিষ্ঠান দরপত্রে অংশ নেই। ১৩ মার্চ সিটি করপোরেশনের প্রধান সম্পত্তি কর্মকর্তার স্বাক্ষরিত একটি চিঠি হাতে পাই। সেখানে উল্লেখ করা হয়, গত ১১ ফেব্রুয়ারি অনুষ্ঠিত দরপত্র মূল্যায়ন কমিটির সভার সিদ্ধান্তে হাজী সালেহ মোহাম্মদকে সর্বোচ্চ দর দাতা হিসেবে কর্তৃপক্ষ কর্তৃক অনুমোদন দেয়া হয়েছে এবং পত্র প্রাপ্তির ৭ দিনের মধ্যে ইজারা মূল্য, মূল্য সংযোজন কর এবং আয়কর এর টাকা জমা প্রদান করতে হবে। সে মোতাবেক ৬ কার্যদিবসের মধ্যে ইজারার সকল শর্ত আমি পালন করি। এরপর প্রধান সম্পত্তি কর্মকর্তার কাছে মৌখিক ভাবে কয়েকবার কার্যাদেশ চাওয়ার পরে, তিনি দেই, দিচ্ছি, দেবো বলে দিন এর পর দিন পার করছেন। এরপর প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা, সচিব ও সম্পত্তি কর্মকর্তার বরাবর লিখিতভাবে কার্যাদেশ চেয়ে কয়েক দফায় চিঠি পাঠাই। কিন্তু কোনো প্রকার উত্তরা পাওয়া যায়নি।

সালেহ মোহাম্মদ আরো বলেন, গত ১৫ জুলাই একটি জাতীয় দৈনিকে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের একই পার্কিং ইজারা পুনঃ বিজ্ঞপ্তি দেখতে পাই। এরপর আদালতে হাজির হয়ে বিষয়টি চ্যালেঞ্জ করলে উচ্চ আদালত ডিএসসিসির সম্পত্তি বিভাগের পার্কিং ইজারা পুনঃ বিজ্ঞপ্তি ম্যামো নম্বর-৪৬.২০৭.০০০.১৩.০২.২০১.২০২০ দরপত্রটি স্থগিত রাখার জন্য গত ২৭ জুলাই আদেশ দেন। যাহার পিটিশন নম্বর- ভি.সি ১০২৫। কিন্তু গত ১৩ আগস্ট প্রধান সম্পত্তি কর্মকর্তা রাসেল সাবরিন স্বাক্ষরিত এক চিঠিতে রিয়াজ উদ্দিনকে বাবুবাজার ব্রিজের নিচের পাকিংটি ইজারা দেয়া হয়। উচ্চ আদালতের আদেশ ব্যাকআউট না করে তারা যে টেন্ডার কার্যক্রম টি চালিয়েছে সেটি সম্পূর্ণ অবৈধ এবং শাস্তি যোগ্য অপরাধ। বিষয়টি সুরাহা এবং পূর্বের ইজারার আদেশ বহাল রাখতে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের মেয়রের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন ভুক্তোভোগী হাজী সালেহ মোহাম্মদ।

You can share this post on
Facebook

0 মন্তব্য

মন্তব্য করতে লগইন করুন অথবা নিবন্ধন করুন ।